লালমনিরহাট বার্তা
আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ক্ষমতার জন্য সন্ত্রাসের পথ বেচে নিয়েছে : মুজিবুল হক চুন্নু
বার্তা ডেস্কঃ | ২৯ নভেম্বর, ২০২২ ১১:৪১ AM
আওয়ামী লীগ ও বিএনপি ক্ষমতার জন্য সন্ত্রাসের পথ বেচে নিয়েছে : মুজিবুল হক চুন্নু

জাতীয় পার্টি মহাসচিব মোঃ মুজিবুল হক চুন্নু বলেছেন, আওয়ামী লীগ আর বিএনপি ক্ষমতার জন্য সন্ত্রাসের পথ বেচে নিয়েছে। তাই দেশের মানুষ এখন আতঙ্কে আছে। তিনি বলেন, দেশের মানুষ মুক্তির জন্য জাতীয় পার্টির দিকে তাকিয়ে আছে। আজ ২৯ নভেম্বর দুপুরে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে জাতীয় ছাত্র সমাজের জাতীয় সম্মেলনে এসব কথা বলেন তিনি।

জাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি ইব্রাহিম খান জুয়েল এর সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক আল মামুন এর পরিচালনায় অনুষ্ঠিত সম্মেলনে মোঃ মুজিবুল হক চুন্নু আরো বলেন, আওয়ামী লীগ আর বিএনপি দুই দলই দূর্নীতি, লুটপাট ও সন্ত্রাস করেছে। দেশের মানুষ আজ তাদের উপর বিরক্ত। মানুষ চায় না বিএনপি বা আওয়ামী লীগকে ক্ষমতায় দেখতে। মানুষ তৃতীয় একটি দল চায়। সেই দল হচ্ছে জাতীয় পার্টি। মানুষ চায় জাতীয় পার্টি জিএম কাদেরের নেতৃত্বে এগিয়ে যাক।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় পার্টি মহাসচিব আরো বলেন, বাংলাদেশে ৫ কোটি মানুষ বেকার, তাদের নিয়ে আওয়ামী লীগ বিএনপির কোন চিন্তা নেই। তাদের চিন্তা ক্ষমতায় থাকা নিয়ে। আরও বলেন, জাতীয় পার্টি কখনো ছাত্র সমাজকে ক্ষমতায় যাওয়ার সিঁড়ি বানাবে না। হরতালের নামে ছাত্র সমাজকে মৃত্যুর দিকে ঠেলে দিবে না জাতীয় পার্টি। তিনি বলেন, জাতীয় পার্টি কোন জোটে নেই। জাতীয় পার্টি তাই তিনশো আসনেই নির্বাচন করতে প্রস্তুতি নিচ্ছে।

জাতীয় পার্টির মহাসচিব আরো বলেন, বিএনপির অভিযোগ তাদের আন্দোলন করতে দিচ্ছে না আওয়ামীলীগ। আমরা মানুষের গণতান্ত্রিক অধিকারে বিশ্বাস করে। তিনি উল্লেখ করে বলেন, বিএনপি ১৯৯১-৯৬ সালে ক্ষমতা ছিলো তখন জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরা রাস্তায় নামতে পারতো না। জাতীয় পার্টিকে মিছিল-মিটিং করতে দেয়নি বিএনপি। তিনি বলেন, দেশের মানুষ আওয়ামীলীগকে ক্ষমতায় দেখতে চায় না। আবার বিএনপি ক্ষমতায় গিয়ে দেশকে দূর্নীতিতে চ্যাম্পিয়ন করবে বা হাওয়া ভবন সৃষ্টি করবে সেটাও দেশের মানুষ চায় না। কারণ, আওয়ামীলীগ ও বিএনপির আদর্শগত পার্থক্য থাকলেও চরিত্রগত পার্থক্য নেই।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তৃতায় জাতীয় পার্টির কো-চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার বলেন, গণতন্ত্র চর্চায় জাতীয় পার্টি কাজ করবে। প্রমাণ করবে জাতীয় পার্টি একটি শক্তিশালী দল। জাতীয় পার্টি কাজ করবে মানবকল্যাণে। হুসেইন মুহাম্মদ এরশাদের পথ ধরে এগোবে দল। তৃণমূলে দলকে সুসংহত করার পরামর্শ দেন তিনি। তিনি বলেন, জিএম কাদের এর নেতৃত্বে জাতীয় পার্টি এগিয়ে যাবে। জাতীয় পার্টির অগ্রযাত্রা কখনো রোধ করা যাবে না।

এসময় জাতীয় পার্টি কো-চেয়ারম্যান সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি বলেন, ৫২, ৬২, ৬৯ ও ৭১- দেশের ছাত্র সমাজ গৌরবোজ্জল ভুমিকা রেখেছে। আগামী দিনেও জাতীয় ছাত্র সমাজ পল্লীবন্ধুর স্বপ্নের নতুন বাংলাদেশ গড়তে অগ্রণী ভুমিকা রাখবে। পল্লীবন্ধুর অবদান দেশের মানুষ এখনো কৃতজ্ঞচিত্তে স্মরণে রেখেছে। দেশের মানুষ আবারো জাতীয় পার্টিকে রাষ্ট্র ক্ষমতায় দেখতে চায়।

এসময় আরো বক্তব্য রাখেন- জাতীয় পার্টির মহাসচিব মোঃ মুজিবুল হক চুন্নু এমপি, কো - চেয়ারম্যান এবিএম রুহুল আমিন হাওলাদার, সৈয়দ আবু হোসেন বাবলা এমপি, প্রেসিডিয়াম সদস্য - আলহাজ্ব শফিকুল ইসলাম সেন্টু, এডভোকেট মোঃ রেজাউল ইসলাম ভূঁইয়া, জহিরুল ইসলাম জহির, মোস্তফা আল মাহমুদ, জহিরুল আলম রুবেল, চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা শেরীফা কাদের এমপি, ভাইস-চেয়ারম্যান - মোঃ আরিফুর রহমান খান, যুগ্ম মহাসচিব গোলাম মোহাম্মদ রাজু, ফখরুল আহসান শাহজাদা, মোঃ বেলাল হোসেন, এডভোকেট আব্দুল হামিদ ভাসানী, সাংগঠনিক সম্পাদক - নির্মল চন্দ্র দাস, মোঃ হেলাল উদ্দিন, সৈয়দ ইফতেকার আহসান হাসান, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য মিজানুর রহমান মিরু, মোঃ জামাল উদ্দিন, যুগ্ম সম্পাদক -ফয়সাল দিদার দিপু,জাতীয় ছাত্র সমাজের সভাপতি মোঃ ইব্রাহীম খান জুয়েল ও সাধারণ মোঃ আল মামুন, শাহ ইমরান রিপন ও মোড়ল জিয়াউর রহমান।

উপস্থিত ছিলেন - চেয়ারম্যানের উপদেষ্টা ড.নুরুল আজহার শামীম, মনিরুল ইসলাম মিলন, নূরুল ইসলাম তালুকদার এমপি, এডভোকেট জহিরুল হক জহির, ভাইস-চেয়ারম্যান- নিগার সুলতানা রানী, শফিকুল ইসলাম শফিক, মোঃ জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া, যুগ্ম মহাসচিব মোঃ আমির হোসেন ভূঁইয়া, সৈয়দ মঞ্জুর হোসেন মঞ্জু, সাংগঠনিক সম্পাদক - শাহজাহান মানসুর, এনাম জয়নাল আবেদীন, আনোয়ার হোসেন তোতা, মাখন সরকার, এবিএম লিয়াকত হোসেন চাকলাদার, সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য - সুলতান মাহমুদ, এম এ রাজ্জাক খান, আহাদ ইউ চৌধুরী শাহীন, গোলাম মোস্তফা। যুগ্ম সম্পাদক মন্ডলীর সদস্য - বাহাদুর ইমতিয়াজ, আজহারুল ইসলাম সরকার, সুজন দে, জাকির হোসেন খান মিলন, নজরুল ইসলাম, আখতার হোসেন দেওয়ান, এম এ সোবহান, আবু সাদেক বাদল সরকার, মাহমুদ আলম, সমরেশ মন্ডল মানিক, দ্বীন ইসলাম শেখ, সামসুল আলম লিপ্টন, কেন্দ্রীয় নেতা - নাজমুল খান, শফিকুল ইসলাম দুলাল, মেহেদী হাসান শিপন, ফারুক শেঠ, আলহাজ্ব আব্দুল বাতেন, রুবেল, সোলায়মান সামি, আলমগীর হোসেন, মোখলেছুর রহমান বস্তু, আলাউদ্দিন আহমেদ,জহিরুল ইসলাম মিন্টু, এডভোকেট আব্দুল ওয়াহাব, এডভোকেট ফিরোজ, শামীম আহমেদ রিজভী, চৌধুরী পারভেজ সাজ্জাদ, রাকিন আহমেদ, ফারুখ আহমেদ।

এই বিভাগের আরও খবর