লালমনিরহাট বার্তা
লালমনিরহাটে তিস্তা কনভেন্সন
স্টাফ রিপোর্টারঃ | ১৪ মে, ২০২২ ১২:৪৪ PM
লালমনিরহাটে তিস্তা কনভেন্সন
তিস্তা বাঁচাও নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদ আয়োজিত তিস্তা মহাপরিকল্পনা দ্রুত বাস্তবায়নে তিস্তা কনভেন্সন/২২ অনুষ্ঠিত হয়।
শনিবার ১৪ মে তিস্তা ডিগ্রি কলেজ মাঠ তিস্তা বাঁচাও নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ নজরুল ইসলাম হক্কানীর সভাপতিত্বে স্বাগত বক্তব্য রাখেন তিস্তা বাঁচাও নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক শফিয়ার রহমান। তিস্তা কনভেন্সনের মূলপত্র পাঠ করেন নদী গবেষক ও বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. তুহিন ওয়াদুদ।
কনভেন্সনে বলা হয় ১৭৮৭ সালে মহাপ্লাবনে বর্তমানে প্রবাহের ৩১৫ কিলোমিটারের এ নদীর সৃষ্টি। কিন্তু ভাতের একতরফা পানি প্রত্যাহার, খননের অভাব, নদী অব্যবস্থাপনা, পলি জমে এ নদী রংপুর বিভাগের অভিশাপ। প্রতিবছর হাজার হাজার একর জমি নদী ভাঙ্গনে মানুষ নিঃস্ব । এই অভিশাপ থেকে মুক্তির জন্য আগামী বাজেটে (২০২২-২০২৩) তিস্তা মহাপরিকল্পনা বাস্তবায়নে অর্থ বারাদ্দ প্রদানের দাবি জানান হয়।
বাজেটে বরাদ্দ রাখাসহ তিস্তানদী রক্ষায় ৬দফা দাবিসমুহ
১. তিস্তা নদী সুরক্ষায় বিজ্ঞানসম্মতভাবে "তিস্তা মহাপরিকল্পনা " দ্রুত বাস্তবায়ন। অভিন্ন নদী হিসেবে ভারতের সঙ্গে ন্যায্য হিস্যার ভিত্তিতে তিস্তা চুক্তি সম্মন্ন, তিস্তা নদীতে সারা বছর পানি প্রবাহ ঠিক রাখতে জলাধার নির্মাণ।
২. তিস্তা নদীর শাখা প্রশাখা ও উপশাখাগুলোর সঙ্গে নদীর পূর্বেকার সংযোগ স্থাপন ও নৌ চলাচল পুনরায় চালু.
৩. ভূমিদস্যুদের হাত থেকে অবৈধভাবে দখলকৃত তিস্তাসহ তিস্তার শাখা প্রশাখা দখলমূক্ত করা। নদীর বুকে ও তীরে গড়ে ওঠা সমস্ত অবৈধ্য স্থাপনা উচ্ছেদ এবং নদী থেকে অবৈধ বালু উত্তোলণকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন।
৪. তিস্তা ভাঙ্গন,বন্যা ও খরায় ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের স্বার্থসংরক্ষণ। নদী ভাঙ্গনের শিকার ভূমিহীন, গৃহহীন ও মৎস্যজীবীসহ নদী ভাঙ্গনে উদ্বাস্ত মানুষের পূনর্বাসন।
৫. তিস্তা মহাপরিকল্পনায় তিস্তা নদী ও তিস্তা তীরবর্তী কৃষকদের স্বার্থ সুরক্ষায় কৃষক সমবায় এবং কৃষিভিত্তিক শিল্প কলকারখানা গড়ে তোলা।
৬. মহাপরিকল্পা বাাস্তবায়নে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ এবং প্রস্তাবিত প্রকল্প এলাকায় আগ্রাধিকার ভিত্তিতে তিস্তা পাড়ের মানুষদের কর্মসংস্থান নিশ্চিত করা।
কনভেনশনে বক্তব্য রাখেন, তিস্তা বাঁচাও নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদের লালমনিরহাট জেলা কমিটির সভাপতি গেরিলা লীডার ড. শফিকুল ইসলাম কানু,বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ লালমনিরহাট শাখার যগ্ম সম্পাদক গোলাম মোস্তফা স্বপন,তিস্তা বাঁচাও নদী বাঁচাও সংগ্রাম পরিষদের কালীগঞ্জ উপজেলা কমিটির সহ সভাপতি অধ্যক্ষ মনওয়ারুল ইসলাম,
রাজারহাট কমিটির সভাপতি সভাপতি ও কনভেন্সন কমিটির আহবায়ক সাজু সরকার,বাংলাদের ওয়ারর্কাস পার্টির কেন্দ্রীয় নেতা আমিনুল ইসলাম গোলাপ।
এই বিভাগের আরও খবর