লালমনিরহাট বার্তা
ডার্ক ম্যাটার: এখনও খোঁজ চলছে, তবে অস্তিত্ব নাও থাকতে পারে
বার্তা অনলাইন ডেস্কঃ | ১ সেপ্টেম্বর, ২০২২ ৪:২২ AM
ডার্ক ম্যাটার: এখনও খোঁজ চলছে, তবে অস্তিত্ব নাও থাকতে পারে

গত ১২ জুলাই জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপের তোলা ছবি প্রকাশের ঘটনা আলোচনার জন্ম দিয়েছে৷ এমনই এক ছবিতে রহস্যময় কিছুর দেখা পেয়েছেন জার্মানিতে অবস্থিত ইউরোপিয়ান স্পেস অবজারভেশন সেন্টারের জ্যোতির্বিজ্ঞানী কায় নোয়েস্কে৷পাঁচটি ছায়াপথের গ্রুপ ‘স্টেফানস কোয়েনট্যাটের’ ঐ ছবি দেখে নোয়েস্কে বলেন, ‘‘সেখানে এমন কিছু আছে যার সম্পর্কে আমরা জানি না... এর মধ্যে একটি ডার্ক ম্যাটার হতে পারে৷’’

বিজ্ঞানীদের ধারণা, মহাবিশ্বের সর্বোচ্চ ৮৫ শতাংশ উপাদান হয়ত ডার্ক ম্যাটার দিয়ে তৈরি৷ যদিও বিজ্ঞানীরা ডার্ক ম্যাটার যে আসলে কী, সে সম্পর্কে এখনও নিশ্চিত হতে পারেননি৷ এমনকি এখনও পর্যন্ত ডার্ক ম্যাটার খুঁজে পাওয়া যায়নি৷

দৃশমান আলো, এক্সরে কিংবা বেতার তরঙ্গের মতো ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক ফোর্সের সঙ্গে ডার্ক ম্যাটারের সংযোগ না ঘটায় ডার্ক ম্যাটারকে এখনও দেখা কিংবা চিহ্নিত করা সম্ভব হয়নি বলে জানান বিজ্ঞানীরা৷ তবে ডার্ক ম্যাটারের মহাকর্ষীয় বলের কারণে এর প্রভাব সম্পর্কে ধারনা পাওয়া যায় বলে জানান তারা৷

সুইজারল্যান্ডে অবস্থিত ‘ইউরোপিয়ান অর্গানাইজেশন ফর নিউক্লিয়ার রিসার্চ’ বা সার্নের ‘লার্জ হ্যাড্রন কোলাইডার' বা এলএইচসির বিজ্ঞানীরা মনে করেন, ডার্ক ম্যাটারের অস্তিত্ব খুঁজে পাওয়ার সবচেয়ে ভালো সম্ভাবনা হচ্ছে এলএইচসি৷

প্রায় এক দশক আগে এলএইচসি দিয়ে হিগস বোসন পার্টিকল খুঁজে পাওয়া গিয়েছিল৷ এই পার্টিকলের অস্তিত্ব সম্পর্কে বিজ্ঞানীরা অনেকদিন ধরে ধারণা করলেও অতীতে তা খুঁজে পাওয়া যায়নি৷ হিগস বোসন পার্টিকল খুঁজে পাওয়ায় পার্টিকল ফিজিক্সের ‘স্ট্যান্ডার্ড মডেল' প্রমাণ করা গেছে৷

এলএইচসির বিজ্ঞানী টেভং ইউ মনে করেন, ডার্ক ম্যাটার রহস্যের সমাধান করতে পারে এলএইচসি৷ যদিও এখনও তার ধারণা, ডার্ক ম্যাটার হয়ত স্ট্যান্ডার্ড মডেলে যে মৌলিক কণাগুলোর কথা বলা আছে, সেগুলোর মতোই হতে পারে৷

এলএইচসিতে যেভাবে ডার্ক ম্যাটার পাওয়া যেতে পারে

দুটি আপেলের মধ্যে একসঙ্গে জোরে সংঘর্ষ লাগালে আপেল দুটো ভেঙে সেগুলোর টুকরো আশেপাশের দেয়ালে লেগে যায়৷ পরে সেই টুকরোগুলো জড়ো করে হয়ত (তাত্ত্বিকভাবে সম্ভব) আবারও দুটো আপেল বানানো সম্ভব৷

এমন উপায় ব্যবহার করেই এলএইচসিতে নতুন কণা খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করা হয়৷ কোলাইডারে মৌলিক কণা চূর্ণবিচূর্ণ করার পর সেগুলো ডিটেক্টরে আটকে যায়৷ পরে সেগুলো জোগাড় করে একত্র করার চেষ্টা করা হয়৷ এই সময় যদি দেখা যায়, কিছু এনার্জি হারিয়ে গেছে তাহলে ধরে নেয়া যেতে পারে, ঐ এনার্জি ডার্ক ম্যাটারে স্থানান্তরিত হয়ে গেছে৷

অবশ্য কিছু বিজ্ঞানী এখনও মনে করেন ডার্ক ম্যাটার যদি আসলেই থাকতো তাহলে এতদিনে তা খুঁজে পাওয়া যেত৷(সূত্রঃ ডয়চে ভেলে)

এই বিভাগের আরও খবর