রংপুরে মানবাধিকার সুরক্ষাকারী ফোরামের কেন্দ্রীয় ককাসের বার্ষিক সম্মেলন
বিশেষ প্রতিনিধি: নিউজ নেটওয়ার্ক সম্পাদক ও প্রধান নির্বাহী বীরমুক্তিযোদ্ধা শহীদুজ্জামান বলেছেন, ৩০ লাখ মানুষের রক্ত, ২ লাখ মা বোনের সম্ভ্রমহানী ও অপরিসীম ত্যাগের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীন দেশে কি করে অন্যায়, অবিচার, দূর্নীতি চলছে। অযোগ্য লোকগুলো প্রতিনিয়ত অন্যায় করছে। মানুষের মৌলিক অধিকার ও মানবাধিকার হরণ করা হচ্ছে। নারী, শিশু ধর্ষণ ও নির্যাতন চলছে, বিভৎস ভালবাসায় নারীকে প্রাণ দিতে হচ্ছে। মানুষ বৃত্ত থেকে বের হতে পারছে না। সর্বক্ষেত্রে বৈষম্য বৃদ্ধি পাচ্ছে। কতিপয় ব্যক্তি মাত্রাতিরিক্ত ধনী হচ্ছে। আবার বিপুল সংখ্যক জনগোষ্ঠী অতি দরিদ্রসীমার নিচে বসবাস করছে। সমাজ অরক্ষিত হয়ে উঠছে। তিনি গত ২৮ডিসেম্বর রংপুরস্থ আরডিআরএস সভাকক্ষে মানবাধিকার সুরক্ষাকারী ফোরামে (এইচআরডিএফ) কেন্দ্রীয় ককাসের বার্ষিক সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এসব কথা বলেন।
‘বাংলাদেশ এশিয়ার সুইজারল্যান্ড হবে’ বলে বঙ্গবন্ধু যে বক্তব্য দিয়েছিলেন, তা অবশ্যই সম্ভব। ইতোমধ্যে বিভিন্ন ক্ষেত্রে আমাদের ব্যাপক সাফল্য অর্জিত হয়েছে। মাথাপিছু আয় বৃদ্ধি পেয়েছে। দুর্নীতি, দুর্বৃত্তায়নের কারণে ও সম্পদের সুষম বন্টন না হওয়ায় স্বাধীনতার কাঙ্খিত লক্ষ্যে পৌছানো সম্ভব হচ্ছে না। জনগণের হৃদয় থেকে উদ্যোগ তৈরি হতে হবে। এতে মানবাধিকার কর্মীরা অগ্রনী ভূমিকা গ্রহণ করবেন । যা স্বাধীনতা যুদ্ধে অর্জিত হয়েছিল।
সম্মেলনে সভাপতিত্ব করেন কেন্দ্রীয় ককাসের সভাপতি মোশফেকা রাজ্জাক। স্বাগত বক্তব্য রাখেন সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান মিলন। বক্তব্য রাখেন কেন্দ্রীয় ককাসের উপদেষ্টা ও রংপুর জেলা সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আকবর হোসেন, কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ও নীলফামারী জেলা সভাপতি অধ্যক্ষ সারোয়ার মানিক, কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ও সাতক্ষীরা জেলা সভাপতি বীরমুক্তিযোদ্ধা আনিছুর রহিম, কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা ও লালমনিরহাট জেলা সভাপতি গেরিলা লিডার ড.এস.এম শফিকুল ইসলাম কানু, নিউজ নেটওয়ার্কের প্রোগ্রাম ফ্যাসিলিটেটর বীরমুক্তিযোদ্ধা সদরুল আলম, উদয়াঙ্কুর সেবা সংস্থা (ইউএসএস) এর প্রোগ্রাম ফ্যাসিলিটেটর আব্দুর রউফ।
জেলা ককাসের পক্ষ থেকে নারী ও মেয়েদের মানবাধিকার বিষয়ক প্রতিবেদন উপস্থাপন, মূল্যায়ন ও করণীয় বিষয়ে আলোচনা করেন এ্যাড. মুনির চৌধুরী (রংপুর), অধ্যক্ষ সারোয়ার মানিক (নীলফামারী), বিলকিস বানু (দিনাজপুর), শিরিন সুলতানা কেয়া (রাজশাহী), লুৎফর রহমান (কুড়িগ্রাম), নিশিকান্ত রায় (লালমনিরহাট), ইন্দ্রজিৎ রায় (যশোর), বীর মুক্তিযোদ্ধা আনিছুর রহিম (সাতক্ষীরা)।
ইউরোপীয় ইউনিয়নের আর্থিক সহায়তায় বাংলাদেশে নারী ও মেয়েদের অধিকার সুরক্ষাকারীদের সহায়তা প্রদান প্রকল্পের আওতায় ৩ বছরব্যাপী নিউজ নেটওয়ার্ক ও উদয়াঙ্কুর সেবা সংস্থা (ইউএসএস) এটি বাস্তবায়ন করেছে। ২০১৮ সালের জানুয়ারী থেকে প্রকল্পটি রংপুর ও ভারত-বাংলাদেশ সীমান্তবর্তী লালমনিরহাট, কুড়িগ্রাম, নীলফামারী, দিনাজপুর, সাতক্ষীরা, যশোর, রাজশাহী জেলায় বাস্তবায়িত হয়েছে। বাংলাদেশের নারী ও মেয়েদের অধিকার সুরক্ষাকারী ও মানবাধিকার কর্মীদের সহায়তা প্রদানই এই প্রকল্পের মূল উদ্দেশ্য। এতে সাংবাদিক, সুশীল সমাজ, নাগরিক সমাজ, ধর্মীয় নেতৃবৃন্দ, নির্যাতন ও সহিংসতার শিকার মানবাধিকার কর্মীদের প্রশিক্ষণের মাধ্যমে সক্ষমতা বৃদ্ধি করা হয়েছে।
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর