বুড়িমারীতে পিটিয়ে হত্যা লাশ পোড়ানোর মামলায় ইউপি সদস্য গ্রেফতার
স্টাফ রিপোর্টার: লালমনিরহাটের বুড়িমারীতে গত বছরের ২৯ অক্টোবর কোরআন অবমাননার গুজবে আবু ইউনুছ মো. সহিদুন্নবী জুয়েলকে পিটিয়ে হত্যা ও লাশ পোড়ানোর মামলায় বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য হাফিজুল ইসলামকে গ্রেফতার করেছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশ। বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে বুড়িমারী বাজার থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার ইউপি সদস্য ওই ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ডের সদস্য।
গত ২৯ অক্টোবর বিকেলে বুড়িমারী বাজার জামে মসজিদে কোরআন অবমাননার গুজবে রংপুরের জুয়েলকে উত্তেজিত জনতা মারধর করতে থাকে। ঘটনার সময় ইউপি সদস্য হাফিজুল ইসলাম মসজিদ বারান্দা থেকে জুয়েল ও তার বন্ধু সুলতান আব্বাসকে বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদে নিয়ে যান। তিনি প্রশাসনকে না জানায়ে নিজে আপোসের চেষ্টা করেন। পরবর্তীতে ওই পরিষদ ভবনে জুয়েলকে পিটিয়ে হত্যার পর সন্ধায় মরদেহ আগুনে পুড়িয়ে দেয় দূর্বৃত্তরা।
এ ঘটনায় গত বছরের ৩১ অক্টোবর জুয়েলের চাচাত ভাই সাইফুল ইসলাম বাদি হয়ে একটি হত্যা মামলা ও পুলিশের উপর হামলার অভিযোগে পাটগ্রাম থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) শাহজাহান আলী বাদি হয়ে একটি ও বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদ ভাঙচুরের এবং অগ্নিসংযোগের অভিযোগে ওই ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আবু সাইদ নেওয়াজ নিশাত বাদি হয়ে একটিসহ মোট তিনটি মামলা রুজু করা হয়। ঘটনার পরদিন থেকে ওই ইউপি সদস্য আত্মগোপনে ছিলেন। পুলিশের দায়ের করা মামলার তদন্তে হাফিজুল ইসলামের সম্পৃক্ততা থাকায় তাকে গ্রেফতার করা হয়। শুক্রবার (০২ এপ্রিল) তাকে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে পাঠানো হয়।  
তিন মামলায় ১১৪ জন নামীয় আসামীসহ অজ্ঞাত শত শত ব্যক্তিদের আসামী করা হয়। লালমনিরহাট জেলা গোয়েন্দা পুলিশ (ডিবি) তিন মামলা তদন্ত করে। মামলায় এ পর্যন্ত ৪৮ জনকে গ্রেফতার করা হয়। আদালতে আতœসমর্পন করেন ৫ জন। এদের মধ্যে ১৭ জনকে রিমান্ডে নেয়া হয়। মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা লালমনিরহাট ডিবি থানার ইনচার্জ (ওসি) ওমর ফারুক এসব বিষয় নিশিচত করেছেন। 
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর