আদিতমারী নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে পুনরায় চালু হলো অবৈধ ইটভাটা
স্টাফ রিপোর্টার: ভ্রাম্যমান আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে উপেক্ষা করে লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলায় ফসলি জমিতে গড়ে ওঠা সান-২ নামের অবৈধ ইটভাটায় পুনরায় ইট পোড়ানোর অভিযোগ উঠেছে।
এর আগে গত ২১ ডিসেম্বর বিকেলে উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের বাড়বিষার দোলায় সান টু ইটভাটা বন্ধ করে এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় করেন ভ্রাম্যমান আদালতের বিচারক  উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন।
উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় ও স্থানীয় কৃষকরা জানান, উপজেলার সারপুকুর ইউনিয়নের বাড়বিষার দোলায় ফসলি জমির উপর অনুমোদনহীন সান টু নামে একটি ইটভাটা গড়ে তোলেন এমদাদুল হক ওরফে এন্তাজ। ফসলী জমির উপর এ ভাটা তৈরীর শুরু থেকে স্থানীয় কৃষকরা জেলা প্রশাসকসহ সরকারী বিভিন্ন দফতরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন। কিন্তু অদৃশ্য কারনে হাজারো কৃষকদের দাবিকে উপেক্ষা করে ইটভাটায় আগুন দেয় ভাটা মালিক এমদাদুল হক এন্তাজ। জীবন জীবিকা ও পরিবারের খাদ্যের একমাত্র পথ ফসলী জমি এবং ফসল রক্ষায় কৃষকরা ইটভাটি বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন করেন। যা নিয়ে দেশের অনেক গনমাধ্যমে গুরুত্বসহকারের খবর প্রকাশিত হয়।
অবশেষে বিষয়টিতে টনকনড়ে প্রশাসনের। জেলা প্রশাসক আবু জাফরের নির্দেশে গত ২১ ডিসেম্বর বিকেলে আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন পুলিশ নিয়ে ওই ইটভাটায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন। এ সময় সান-২ ইটভাটা মালিক এমদাদুল হক এন্তাজ  বৈধ কাগজপত্র দেখাতে ব্যর্থ হলে ভাটা মালিকের এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় করে বৈধ কাগজপত্র প্রদর্শন না করা পর্যন্ত ইট তৈরী ও পোড়ানোর উপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেন।
ভ্রাম্যমান আদালতের সেই নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে সাম্প্রতিক সময়ে পুনরায় সেই ভাটায় ইট তৈরীসহ পোড়ানো শুরু করেন। আদালতের নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে পুনরায় ভাটা চালু করায় দিশেহারা হয়ে পড়েছেন স্থানীয় কৃষকরা।
বাড়বিষার দোলার কৃষক সাইদুল ইসলাম ও আব্দুস সোবহান আলী বলেন, সারাদেশের অবৈধ ইটভাটা গুড়িয়ে দিতে নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এ নির্দেশে সারা দেশে অনেক অবৈধ ইটভাটা গুড়িয়ে দিয়েছ প্রশাসন। কিন্তু রহস্যজনক ভাবে নিরবতা পালন করছে এ জেলার প্রশাসন। আমদের পরিবার সচল রাখার একমাত্র মাধ্যম চাষাবাদ। উপজেলার সব থেকে ধানের জমিই এ বড়বিষার দোলা। এ দোলার ইটভাটা বন্ধ না করলে হাজার হাজার কৃষক পরিবারকে না খেয়ে মরতে হবে। সেই ধানের জমি রক্ষায় এ অবৈধ ইটভাটা দ্রুত গুড়িয়ে দিতে প্রশাসনের প্রতি জোর দাবি জানান তারা।
সান -২ ইটভাটা মালিক এমদাদুল হক এন্তাজ বলেন, ভ্রাম্যমান আদালত জরিমানা নিয়ে বন্ধ করলেও আমি অনুমোদনের জন্য গত ১০ ফেব্রুয়ারী জেলা প্রশাসকের কাছে এ ভাটায় আগুন জ্বালানোর অনুমোদন চেয়ে আবেদন করেছি। এসবের অনুমতি পেতে সময় লাগে। তাই অনুমোদনের কপি হাতে আসেনি।
আদিতমারী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) মুহাম্মদ মনসুর উদ্দিন বলেন, আদালতের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে সান -২ পুনরায় আগুন জ্বালিয়ে কার্যক্রম শুরু করেছে বলে শুনেছি। খুব দ্রুত পুনরায় ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করে কঠোর ব্যবস্থা নেয়া হবে।
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর