পৌর নির্বাচনে আওয়ামী লীগ প্রার্থীর ইস্তেহার ঘোষনা ॥ বিএনপি ও জাপার সংবাদ সম্মেলন
স্টাফ রির্পোটার: লালমনিরহাট পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা প্রতীকের নির্বাচনী অফিসে ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ ঘটনায় বিএনপি জামাতসহ দুই শতাধিক ব্যক্তির নামে মামলা দায়ের করেছে ৬ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সম্পাদক শফিকুল ইসলাম বিলু। এই মামলায় সদর থানা পুলিশ গত ১০ফেব্রুয়ারি ভোর রাতে জেলা বিএনপির সদস্য সাইদুল ইসলাম ও পরদিন পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ড বিএনপি'র সভাপতি আলী হোসেন কে গ্রেফতার করে ।
এই ঘটনায় গত ১১ফেব্রুয়ারি দুপুরে বিএনপি এক সংবাদ সম্মেলন করে। বিএনপির জাতীয় নির্বাহী কমিটির রংপুর বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও জেলা বিএনপির সভাপতি আসাদুল হাবিব দুলু বলেন, পৌরসভা নির্বাচনে বিএনপির জনসমর্থন দেখে ভয় পেয়ে তারা বিএনপির নের্তাকর্মীর নামে নির্বাচনী কার্যালয় ভাংচুর মামলা দিয়ে গ্রেফতার বানিজ্য চালাচ্ছেন। গ্রেফতারের ভয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা প্রকাশ্যে ভোট চাইতে পারছে না। তারা হেরে যাওয়ার ভয়ে নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করছেন। এসময় জেলা বিএনপির সম্পাদক হাফিজুর রহমান বাবলা, ধানের শীষ প্রতীকের প্রার্থী মোশারফ হোসেন রানাসহ বিএনপির অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
এদিকে ১২ফেব্রুয়ারি সকালে জেলা আওয়ামীলীগ কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে পৌরসভা নির্বাচনে নৌকা মার্কার প্রার্থী মোফাজ্জল হোসেন ২১দফা নির্বাচনী ইস্তেহার ঘোষনা করেন। ওই ইস্তেহার ঘোষনা অনুষ্ঠানে বিএনপির অভিযোগ ভিত্তিহীন দাবী করে জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এ্যাড. মতিয়ার রহমান বলেন,  নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠ করার জন্য মাঠ পর্যায়ে প্রশাসন কাজ করছেন। নির্বাচনকে প্রশ্নবিদ্ধ করার জন্যই আওয়ামী লীগ অফিস ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করা হয়েছে বলেও তিনি দাবী করেন। অনুষ্ঠানে জেলা, উপজেলা ও পৌর  আওয়ামী লীগের অন্যান্য নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
অপরদিকে ১২ফেব্রুয়ারি বিকালে জাতীয় পার্টি কার্যালয়ে লাঙ্গল মার্কার প্রার্থী ওয়াহিদুল ইসলাম সেনা এক সাংবাদিক সম্মেলনে পৌরসভা নির্বাচন সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ ভাবে অনুষ্ঠানের জন্য জেলা নির্বাচন অফিসার জেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের প্রতি আহ্বান জানান। সংবাদ সম্মেলনে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের পতœী ও জেলা জাতীয় পার্টির আহ্বায়ক সেরিফা কাদের, সদস্য সচিব সেকেন্দার আলীসহ পার্টির জেলা উপজেলা ও পৌর নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।
সংবাদ সম্মেলনে লাঙ্গল মার্কার প্রার্র্থী ওয়াহিদুল হাসান  সেনা লিখিত বক্তব্যে  বলেন,  আমি আমার দলের  চেয়ারম্যান এবং বিরোধীদলীয় উপনেতা  গোলাম মোহাম্মাদ কাদের এর মনোনিত হয়ে লাঙ্গল মার্কার প্রতীক নিয়ে  ভোটারদের দারে দারে ভোট চেয়ে  বেড়াচ্ছি।  ভোটারদের ভালবাসা এবং স্বতস্ফুর্ত সাড়া আমাকে দারুন ভাবে অনুপ্রেরনা দিয়েছে। আমি আশা করি এবং বিশ্বাস করি সুষ্ঠ নিরপেক্ষ  নির্বাচন হলে, আমি নির্বাচিত হব ইনশাল্লাহ।
আপনারা জানেন জাতীয় নির্বাচনে মহাজোটের শরীকদল জাতীয় পার্টি এখন সংসদে বিরোধী দলের ভূমিকা পালন করছে। কিন্তু স্থানীয় নির্বাচনে এর  কোন সর্ম্পক নেই। এখানে সবাই যার যার দলের মনোনিত হয়ে নিজস্ব প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে অংশগ্রহন করছে। আমি মনে করি ভোটের আগে কোন মহল বিভ্রান্তী ছড়াতে পারে তাই কোন প্রকার গুজবে কিংবা বিভ্রান্তির বিষয়ে আপনারা সতর্ক থাকবেন। আমি  ভোটের মাঠে ভোটারদের সাথে আছি, তাদের ভালবাসা ও সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দিতা করছি।



জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর