লালমনিরহাট বার্তা
লালমনিরহাট খুনিয়াগাছে তিন পরিবার ফতোয়া’র শিকার হয়ে এক ঘরে
বার্তা ডেস্ক : May 20, 2021, 4:31:15 PM সময়ে

লালমনিরহাট খুনিয়াগাছে তিন পরিবার ফতোয়া’র শিকার হয়ে এক ঘরে

লালমনিরহাট সদর উপজেলার খুনিয়াগাছ ইউনিয়নের ছেকনাপাড়া গ্রামে তিন পরিবারের উপর ফতোয়া জারী করে এক ঘরে করেছে ফতোয়াবাজরা। নিরিহ তিন পরিবারের বাড়িতে এলাকার অন্যান্য মানুষের প্রবেশ, কোন প্রকার লেন-দেন, দোকানপাটে ক্রয় বিক্রয় এবং ক্ষেত খামারে কোন শ্রমিক কাজ না করার জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করে মসজিদের মাইকে ঘোষনা করা হয়েছে। ফতোয়ার শিকার ভুক্তভূগী পরিবারগুলো নিরুপায় হয়ে আজ বৃহস্পতিবার ২০ মে ঐ এলাকার মসজিদ কমিটি সদস্য আব্দুল মতিন ও ঈমাম মওলানা সহিদার রহমানের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপার ও জেলা প্রশাসকের নিকট লিখিত অভিযোগ করেন । লিখিত অভিযোগে জানাগেছে, ছেকনাপাড়া গ্রামে রিয়াজুল ইসলামের সাথে একই গ্রামের আব্দুল মতিনের পরিবারের জমি-জমা নিয়ে বিরোধ চলে। এরই জের ধরে আব্দুল মতিন ছেকনাপাড়া বাইতুল মাকাম জামে মসজিদ এর ঈমাম মওলানা সহিদার রহমান মিলে তিন পরিবারের লোকজনের উপর মসজিদের মাইকে ঘোষনা দিয়ে ফতোয়া জারী করে। আব্দুল মতিন এলাকার প্রভাবশালী হওয়ায় সে পূর্ব শক্রুতা কে ব্যবহার করে এলাকার ৬০ বছরের বৃদ্ধ রিয়াজুল ইসলাম, ৭০ বছরের বৃদ্ধ মোঃ ইসাহাক আলী ও শতাধিক বছরের বৃদ্ধ এমাদ উদ্দিন সরকার এর পরিবারের উপর ফতোয়া জারি করে। ফতোয়ার শিকার শতবছরের বৃদ্ধা এমাদ উদ্দিন জানান, আমার বয়স ১০০ বছর উপর এলাকার বাইতুল মাকাম জামে মসজিদ এর সভাপতির আমার ছোট ভাই কিন্তু পারিবারিক বিরোধ নিয়ে আব্দুল মতিন গংরা আমার পরিবার কে এক ঘরে করে রাখে। এখন আমি এই বয়সে কার কাছে গিয়ে বিচার চাই ? ফতোয়ার শিকার এছাহাক আলী জানান, প্রভাবশালী আব্দুন মতিন এর সাথে তার পূর্বে বিরোধ ছিলো বিভিন্ন সময়ে এরই জের ধরে ৬ মাস পূর্বে আমার পরিবারের উপর ফতোয়া জারী করে। এখন এলাকার লোকজন প্রভাবশালীর ভয়ে আমাদের সাথে কোন কথা বলে না এমনকি মসজিদের চাঁদাও নেয় না এছাড়াও ঈদের নামাজেও পড়তে বাধা দেয়। অপরদিকে প্রভাবশালী আব্দুল মতিন জানান, আমার বিরুদ্ধে অভিযোগ মিথ্যা। এমন কোন ঘটনা করিনি। মসজিদ এর ঈমাম মওলানা সহিদার রহমান এর সাথে কথা বলতে গেলে তিনি কোন কথা বলতে রাজী হয়নি। এ বিষয়ে লালমনিরহাট সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা উত্তম কুমার জানান, লিখিত অভিযোগ পেয়েছি দ্রæত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।