লালমনিরহাট বার্তা
তৃণমূলের ১০০ জনের নাম জমা দিয়েছি- শুভেন্দু
বার্তা অনলাইন ডেস্কঃ | ২ আগস্ট, ২০২২ ১:৪৬ PM
তৃণমূলের ১০০ জনের নাম জমা দিয়েছি- শুভেন্দু
পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের গ্রেফতার এবং ইডির তদন্তের মাঝেই দিল্লিতে শুভেন্দু। বৈঠক করলেন অমিত শাহের সঙ্গে। তার পরেই জানালেন তালিকা দেওয়ার কথা।দিল্লিতে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহের সঙ্গে বৈঠক করলেন শুভেন্দু অধিকারী। আর তার পরেই বিধানসভার বিরোধী দলনেতা তুললেন বিস্ফোরক অভিযোগ। তাঁর দাবি, পার্থ চট্টোপাধ্যায় বা অর্পিতা মুখোপাধ্যায় নন, চাকরি দুর্নীতি-কাণ্ডে তৃণমূলের আরও অনেকে যুক্ত। তিনি শাহের কাছে ১০০ জন তৃণমূল নেতা-নেত্রীর নামের তালিকা দিয়েছেন বলেও জানিয়েছেন শুভেন্দু। সেই তালিকায় তৃণমূল সাংসদ, বিধায়কের পাশাপাশি কয়েক জন মন্ত্রীর নামও রয়েছে বলে সংবাদমাধ্যমকে জানিয়েছেন তিনি।
চলতি সপ্তাহেই দিল্লি যাওয়ার কথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। ঠিক তার আগে শাহের সঙ্গে শুভেন্দুর বৈঠকের বিষয় নিয়ে অনেক জল্পনা ছিল। মঙ্গলবার দুপুরে সংসদ ভবনে শাহের ঘরেই ৪৫ মিনিট একান্ত বৈঠক হয়। বিজেপির রাজ্য সভাপতি সুকান্ত মজুমদার বা অন্য কোনও নেতাই সেখানে উপস্থিত ছিলেন না। বৈঠক শেষে শুভেন্দু টুইট করে জানান, শিক্ষক নিয়োগ দুর্নীতি নিয়ে তিনি শাহের সঙ্গে কথা বলেছেন। একই সঙ্গে দ্রুত সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন (সিএএ) কার্যকরের অনুরোধও জানিয়েছেন তিনি।
পরে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে বিস্ফোরক দাবি করেন শুভেন্দু। তিনি বলেন, ‘‘১০০-র বেশি বিধায়ক এবং তৃণমূলের তোলাবাজের নাম কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে দিয়েছি যাঁরা গোটা বাংলায় টাকা তোলার র‌্যাকেট চালায়। পুলিশের নিরাপত্তা নিয়ে গ্রিন করিডর বানিয়ে ভাইপোর বাড়ি ও পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের বাড়িতে পাঠিয়েছেন। উনি আমায় কথা দিয়েছেন, এই দুর্নীতির পূর্ণ তদন্ত হবে।’’ একই সঙ্গে শুভেন্দু জানান, এটা যে স্বাধীনতার পরে সবচেয়ে বড় দুর্নীতি তা শাহও মেনেছেন। শুভেন্দু বলেন, ‘‘হরিয়ানায় তিন হাজার, ত্রিপুরায় ১১ হাজার চাকরিতে দুর্নীতি হয়েছিল। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গে ৭৫ হাজার চাকরির মধ্যে ৫০-৫৫ হাজার বিক্রি করা হয়েছে। একা পার্থ, অপা, মপারা যুক্ত নন। প্রচুর কালেক্টর আছে। ব্লক অনুযায়ী কালেক্টর আছে, জেলা অনুযায়ী কালেক্টর আছে। ১০০ জনের নাম দিয়েছি। তার মধ্যে বিধায়ক, সাংসদ রয়েছেন। মন্ত্রীও রয়েছেন। চার বিধায়কের লেটারপ্যাড-সব বিভিন্ন তথ্য প্রমাণও জমা দিয়েছি। যাঁরা টাকা তুলেছেন। আমি চেয়েছি, আরও কড়া তদন্ত হোক। তদন্তকে একেবারে মূলে নিয়ে যেতে হবে।’’
দুর্নীতির অভিযোগ ও তদন্তের বিষয়ে আলোচনার পাশাপাশি সিএএ নিয়েও তিনি শাহের সঙ্গে কথা বলেন বলে জানিয়েছেন শুভেন্দু। তাঁর দাবি, শাহ তাঁকে জানিয়েছেন, করোনার বুস্টার ডোজ দেওয়ার প্রক্রিয়া শেষ হলেই আইনের খসড়া তৈরি হবে।
শুভেন্দুর এই আক্রমণ নিয়ে, তৃণমূল সাংসদ শান্তনু সেন সংবাদামাধ্যমকে বলেন, ‘‘উনি কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করছেন, তা কি ওঁর দলের লোকেরা জানেন? রাজ্য সভাপতি, প্রাক্তন রাজ্য সভাপতি জানেন? এখানে গাঁধী মূর্তির সামনে বিক্ষোভ সমাবেশের ডাক দিয়েছে বিজেপি। কিন্তু দলের অর্ধেক সাংসদকেও সেখানে দেখা যায়নি। গোষ্ঠীদ্বন্দ্বে জর্জরিত এবং দুর্নীতিপরায়ণ বিজেপির নেতাদের মুখে তৃণমূলের সমালোচনা মানায় না।’’(সূত্রঃ আনন্দ বাজার পত্রিকা অনলাইন)
এই বিভাগের আরও খবর