লালমনিরহাট বার্তা
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কিডনি বিভাগে হিমো ডায়ালাইসিসের নতুন চার মেশিনে ভোগান্তি কমেছে রোগীদের
রংপুর অফিস | ৪ ডিসেম্বর, ২০২১ ১০:১২ AM
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কিডনি বিভাগে হিমো ডায়ালাইসিসের নতুন চার মেশিনে ভোগান্তি কমেছে রোগীদের
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কিডনি বিভাগে আরো চারটি নতুন হিমো ডায়ালাইসিস মেশিন ও একটি ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে।এখন মেয়াদোত্তীর্ণ মেশিন দিয়ে খুঁড়িয়ে চলা হাসপাতালের ডায়ালাইসিস কার্যক্রমে ভােগান্তি কমেছে বলে জানান রোগীর স্বজনরা। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে প্রাপ্ত এসব মেশিন গত মঙ্গলবার থেকে পুরোদমে শুরু করেছে হিমো ডায়ালাইসিসের কাজ।হাসপাতালের কিডনি বিভাগ সূত্রে জানা গেছে,কিডনি ডায়ালাইসিস বিভাগে ২৪টি শয্যা রয়েছে।কয়েকদিন আগেও মাত্র ১৪টি সচল ডায়ালাইসিস মেশিন দিয়ে গুরুতর রোগীদের অগ্রাধিকার ভিত্তিতে সেবা দেয়া হতো। আবার কখনো দীর্ঘ সময় ধরে কাজ করার ফলে চালু মেশিনের মধ্যে দু-চারটি প্রায় বিকল হয়ে থাকতো।এসময় রোগীদের অসহনীয় ভোগান্তিতে পড়তে হতো। এছাড়া ডায়ালাইসিস কাজে অনেক বিশুদ্ধ পানির প্রয়োজন হয়। এজন্য বিদ্যমান দুটি ওয়াটার ট্রেটমেন্ট প্লান্ট মাঝে মাঝে বিকল হওয়ায় ব্যাহত হয় ডায়ালাইসিস কার্যক্রম। অধিকাংশ ডায়ালাইসিস মেশিন ও ওয়াটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট ২০১০-১৬ সালে স্থাপন করা হয়েছিল। যার মেয়াদ মাত্র তিন বছর। রংপুর বিভাগের দেশের বিভিন্ন জেলা থেকে প্রতিদিন রমেক হাসপাতালের কিডনি বিভাগে ৬০ জন রোগী আসেন। বর্তমানে নতুন চারটি সহ মোট ১৮টি ডায়ালাইসিস মেশিন দিয়ে তিন শিফটে প্রায় ৪৫ জন রোগীর সেবা দেয়া সম্ভব হচ্ছে। ফলে এখনো গড়ে ১৫ ডায়ালাইসিস না করে ফিরে যেতে হচ্ছে ।
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কিডনি বিভাগের প্রধান সহযোগী অধ্যাপক ডা.এবিএম মোবাশ্বের আলম বলেন, নতুন চারটি হিমো ডায়ালাইসিস মেশিন জাপানের নিপ্রো কোম্পানির তৈরি। এগুলো আসায় ডায়ালাইসিস কার্যক্রমে রোগীদের ভোগান্তি কিছুটা কমবে। তবে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে যে হারে রোগীর চাপ বাড়ছে,তাতে আরো ডায়ালাইসিস মেশিন প্রয়োজন। তিনি বলেন, আগের মেশিনগুলো মেয়াদোত্তীর্ণ হয়েছে।এছাড়া কয়েক শিফটে দীর্ঘ সময় চালু রাখায় মেশিনগুলো বিকল হয়ে পড়েছে। তিনি বলেন, ঢাকা কিডনি হাসপাতাল সহ অনেক হাসপাতালে ডায়ালাইসিস মেশিন রাত ৮টার পর বন্ধ রাখা হয়।সেখানে আমাদের মেশিনগুলো ধারা বাহিক ভাবে রাত ১২টার পরও কখনো কখনো চালানো হচ্ছে।
রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের পরিচালক ডাঃ রেজাউল করিম সাংবাদিকদের বলেন, বর্তমানে চারটি ডায়ালাইসিস মেশিন ও একটি ওয়ারটার ট্রিটমেন্ট প্লান্ট স্থাপন করা হয়েছে।এতে কিডনি রোগীদের ভোগান্তি অনেক কমবে।তবে আরো ১০টি ডায়ালাইসিস মেশিন চাওয়া হয়েছে।
এই বিভাগের আরও খবর