লালমনিরহাট বার্তা
লালমনিরহাট বিসিকের সাফল্য
সূফী মোহাম্মদ: : May 1, 2021, 6:50:32 PM সময়ে

লালমনিরহাট বিসিকের সাফল্য

শিল্পসমৃদ্ধ উন্নত বাংলাদেশ গঠনে পরিবেশবান্ধব শিল্পায়নের রূপকল্প

বৈশ্বিক প্রতিযোগিতায় সক্ষম শিল্পের বিকাশ, দক্ষ মানবসম্পদ তৈরি, কর্মসংস্থান সৃষ্টি মাধ্যমে দারিদ্র নিরসনকল্পে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) অগ্রণী ভূমিকা পালন করে চলেছে। টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা সমূহ (এসডিজিএস) পূরনের মাধ্যমে দেশে কাঙ্খিত উন্নয়ন নিশ্চিত করা এবং স্বল্পোন্নত দেশ (এলডিসি) হতে উত্তরণের মাধ্যমে বিশ্বদরবারে মর্যাদার আসনে উপনিত হওয়ার অগ্রযাত্রায় বিসিকের ভুমিকা অনশ্বীকার্য। ব্যাপক শিল্পায়ন একটি দেশের উন্নয়নের চালিকা শক্তি। দ্রæত জাতীয় আয় বৃদ্ধি এবং বর্ধিত জনসংখ্যার কর্মসংস্থানের জন্য শিল্পায়ন অপরিহার্য্য আর সেই শিল্পায়নের কাজটি পুরো দেশজুড়ে নিরলস ভাবে করে যাচ্ছে লালমনিরহাট বিসিক। সারাদেশে ছোট ছোট উদ্যোক্তা তৈরী এবং ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পকে এগিয়ে নিতে ১৯৫৭ সালে বিসিকের জন্ম হয়। জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শ্রম, বাণিজ্য ও শিল্প প্রতিমন্ত্রী থাকাকালে আইন পরিষদে তিনি ইপসিক বিল এনেছিলেন। স্বাধীনতার পর ইপসিক-এর নাম বদলে রাখা হয় বিসিক, যার মুল লক্ষ্য ছিল শিল্পায়ন ও কর্মসংস্থান সৃষ্টির পোষক প্রতিষ্ঠান হিসাবে প্রত্যেক জেলায় সুষম উন্নয়ন নিশ্চিত করা। এটি মুলত দেশের প্রাতিষ্ঠানিকভাবে উদ্যোক্তা তৈরীর ১ম উদ্যোগ। বর্তমানে এটি শিল্প মন্ত্রনালয়ের অধীন একটি প্রতিষ্ঠান। লালমনিরহাট জেলা সদরে বিসিকের যাত্রা শুরু ১৯৮৭-৮৮ অর্থবছরে। এ অর্থবছরে জমি অধিগ্রহণের মাধ্যমে লালমনিরহাট জেলায় বিসিক শিল্পনগরীর গড়ার কাজ শুরু হয়। এরপর ১৯৯৩-৯৪ অর্থবছরে শিল্পউদ্যোক্তাদের মাঝে প্লট বরাদ্দ প্রদানের কার্যক্রম গতি পায়। এ শিল্পনগরীতে মোট ১০৭টি শিল্প প্লট রয়েছে, যার মধ্যে ৩০টি শিল্প কারখানার অনুকুলে ৯৮টি প্লট বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। এ ৩০টি শিল্পকারখানার মধ্যে ১৪টি শিল্প কারখানা বর্তমানে চালু। বন্ধ আছে ৫টি, রুগ্ন ২টি, নির্মাণাধীন শিল্প ইউনিট ২টি এবং নির্মাণের অপেক্ষায় ৭ টি। বর্তমানে বরাদ্দযোগ্য শিল্প প্লট খালি আছে ০৯টি। শিল্পনগরীর বন্ধ ও রুগ্ন শিল্প ইউনিট সমুহ চালু করার জন্য কার্যকরি পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে জেলা বিসিক। বিসিকের চালুকৃত শিল্প ইউনিট সমুহে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ ভাবে প্রায় ১০০০ জন শ্রমিক কর্মরত আছেন যা কর্মসংস্থানে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। শিল্প প্লট বরাদ্দ ছাড়াও লালমনিরহাট বিসিকের নানাবিধ সেবা প্রদান করে আসছে যেমন, শিল্পোদ্যোক্তা উন্নয়ন, উন্নত রাস্তাঘাট, পানি, বিদ্যুৎ, গ্যাস ইত্যাদি সুবিধা সম্বলিত শিল্পনগরী শিল্প পার্ক স্থাপনের মাধ্যমে উন্নত প্লট বরাদ্দদান, নিজস্ব কর্মসূচীর মাধ্যমে ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের সহযোগিতায় উদ্যোক্তাদেরকে ঋণ সহায়তা প্রদান, প্রকল্প প্রোফাইল প্রণয়ন ও প্রকল্প মূল্যায়ন, শিল্প ইউনিট স্থাপন, পণ্যের উৎপাদন-মানোন্নয়ন ইত্যাদি বিষয়ে কারিগরি ও অন্যান্য সহায়তা প্রদান ছাড়াও উন্নত মানের নকশা উদ্ভাবন ও বিতরণ, লাগসই প্রযুক্তি আহরণ ও স্থানান্তর বা উদ্ভাবন, ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্পে বিনিয়োগ, উৎপাদন ও বাজারজাতকরণের প্রযুক্তিগত ও অন্যান্য তথ্য সংগ্রহ, সংকলন ও বিতরন করা, শিল্প সম্প্রসারণ সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় গবেষনা, সমীক্ষা জরীপ ইত্যাদি পরিচালনা, শিল্প স্থাপনে প্রয়োজনীয় বিনিয়োগ-পূর্ব ও বিনিয়োগ-উত্তর পরামর্শ প্রদান, নিয়ন্ত্রণমূলক কার্যক্রম, ক্ষুদ্র ও কুটিরশিল্প নিবন্ধনকরণ, কর অবকাশ, কর, শুল্ক ইত্যাদি মওকুফ বিষয়ে সুপারিশ প্রদান, শিল্পের কাঁচামাল ও মোড়ক সামগ্রী আমদানীর ক্ষেত্রে প্রাধিকার নির্ধারণে সুপারিশ প্রদান ও অন্যান্য। চলতি অর্থ বছরে (জুলাই ২০২০-মার্চ ২০২১) পর্যন্ত বিসিক লালমনিরহাট নিজস্ব তহবিল থেকে কুটির ও ক্ষুদ্র শিল্পের ২৪ জন উদ্যোক্তার মাঝে ২৬.৫০ লক্ষ টাকা বিতরন করেছে। কুটির শিল্পে ৮৮টি এবং ক্ষুদ্রশিল্পে ৭টি নিবন্ধন প্রদান করা হয়েছে, যা লক্ষ্য মাত্রার চারগুন। করোনার কারণে ক্ষতিগ্রস্থ ৩শ ৪জন উদ্যোক্তার মাঝে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী কর্তৃক ঘোষিত ঋণ প্রণোদনা প্যাকেজের আওতায় ১৯কোটি ৮৬ লক্ষ টাকা ব্যাংকের মাধ্যমে বিতরণ এরমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে। বঙ্গবন্ধুর জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে ৪জন উদ্যোক্তাকে কর্মসংস্থান ব্যাংকের মাধ্যমে ৫.৫০ লক্ষ টাকা বিতরণ করা হয়েছে। বিশেষকরে উদ্যোক্তা যাতে নিজস্ব বিনিয়োগে শিল্প গড়তে পারে সে জন্য ২৯ জন শিল্পউদ্যোক্তাকে পরামর্শ প্রদানের পাশাপাশি উদ্যোক্তা উন্নয়ণ প্রশিক্ষণের মাধ্যমে ৭৫ জন সম্ভাবনাময় উদ্যোক্তাকে প্রশিক্ষণ প্রদান এবং ১৩৫ জন নতুন শিল্পেউদ্যোক্তা চিহ্নিত করে প্রকল্প প্রস্তাব প্রনয়ণ ও যথাযথ মুল্যায়ন শেষে ৭৮ জন উদ্যোক্তার জন্য বিভিন্ন ব্যাংকে ঋণের জন্য সুপারিশ করা হয়। ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্পের উদ্যোক্তারা যাতে আধুনিক ডিজাইনের পন্য উৎপাদন করতে পারে সে দিকটি বিবেচনা করে ১২জন উদ্যোক্তাকে বিভিন্ন নকশা প্রদান এবং উদ্যোক্তাদের প্রযুক্তিগত জ্ঞান সমৃদ্ধের লক্ষ্যে ০৮ উদ্যোক্তাকে কারিগরী তথ্য বিতরণ করা হয়েছে। নতুন উদ্যোক্তা তৈরীতে এবং বিসিকের সার্বিক সেবাসমুহ সেবা প্রত্যাশিদের মাঝে ছড়িয়ে দিতে বাংলাদেশ ক্ষুদ্র ও কুটির শিল্প করপোরেশন (বিসিক) লালমনিরহাট বদ্ধপরিকর।