লালমনিরহাট বার্তা
আম কুড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে শিশুর মৃত্যু
বার্তা মনিটর : May 15, 2021, 2:18:10 PM সময়ে

আম কুড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে শিশুর মৃত্যু

দমকা হাওয়া ও বৃষ্টিপাতের মধ্যে বাড়ীর উঠানের গাছের আম কুড়াতে গিয়ে বজ্রপাতে ৮ বছরের শিশু রাইসা মনির মর্মান্তিক মৃত্যু হয়েছে। গত ১১ মে সকালে এই ঘটনা ঘটে। বজ্রপাতে নিহত রাইসা মনি চট্রগ্রাম জেলার ফটিকছড়ি উপজেলার ছাদেকনগর গ্রামের মোহাম্মদ আলীর মেয়ে। সকালে বিকট শব্দের বজ্রপাত হলে রাইসা মনি মাটিতে লুটে পড়ে, তাকে বাঁচাতে গিয়ে তার মা গুরুতর আহত হয়। প্রতিবেশীরা শিশু কন্যা ও মা রোকসানা আক্তারকে দ্রæত হাসপাতালে নিয়ে যায়। কর্তব্যরত চিকিৎসায় শিশুটিকে মৃত্যু ঘোষণা করেন। গুরুতর আহত রোকসানা বেগমকে উন্নত চিকিৎসার জন্য চট্রগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। বজ্রপাতে করনীয় বজ্রপাতের সময় খোলা জায়গা, খোলা মাঠ অথবা উঁচু স্থানে থাকবেন না। এ সময় ধান ক্ষেতে বা খোলা মাঠে থাকলে তাড়াতাড়ি পায়ের আঙ্গুলের উপর ভর দিয়ে এবং কানে আঙ্গুল দিয়ে মাথা নিচু করে বসে থাকুন। বজ্রপাতের আশংকা হলে যত দ্রæত গাছপালা, বৈদ্যুতিক খুঁটি ও তার অথবা ধাতব খুটি, মোবাইল টাওয়ার ইত্যাদি থেকে দূরে থাকুন। কালো মেঘ দেখা দিলে নদী, পুকুর ডোবা বা জলাশয় থেকে দূরে থাকুন। বজ্রপাতের সময় গাড়ির ভিতরে অবস্থান করলে গাড়ীর ধাতব অংশের সঙ্গে শরীরের সংযোগ ঘটাবেন না, সম্ভব হলে গাড়ী নিয়ে কোন কংক্রিটের ছাউনির নীচে আশ্রয় নিন। বজ্রপাতের সময় বাড়ীতে থাকলে জানালার কাছাকাছি ও বারান্দায় থাকবেন না। জানালা বন্দ রাখুন, এবং ঘরের ভিতরে বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম থেকে দূরে থাকুন। বজ্রপাতের সময় মোবাইল, ল্যাপটপ, কম্পিউটার, ল্যান্ডফোন, টিভি, ফ্রিজসহ সব বৈদ্যুতিক সরঞ্জাম ব্যবহার থেকে বিরত থাকুন এবং এগুলো বন্ধ করে দিন। বজ্রপাতের সময় ধাতব হাতল যুক্ত ছাতা ব্যবহার করবেন না। জরুরী প্রয়োজনের প্লাষ্টিক বা কাঠের হাতল যুক্ত ছাতা ব্যবহার করতে পারেন। এ সময় শিশুদের খোলা মাঠে খেলাধূলা থেকে বিরত রাখুন এবং নিজেরাও বিরত থাকুন। বজ্রপাতের সময় ছাউনী বিহীন নৌকায় মাছ ধরতে যাবেন না, তবে এ সময় নদী কিংবা সমুদ্রে থাকলে নৌকার ছাউনীর নীচে অবস্থান করুন। বজ্রপাত ও ঝড়ের সময় বাড়ির ধাতব কল, সিড়ি রেলিং পাইপ ইত্যাদি স্পর্শ করবেন না। প্রতিটি বিল্ডিং এ বজ্র নিরোধক দন্ড স্থাপন করুন। খোলা স্থানে অনেকে একত্রে থাকা কালীন বজ্রপাত শুরু হলে প্রত্যেককে ৫০ থেকে ১০০ গজ দূরে সরে যান। বজ্রপাতে কোন বাড়ীতে যদি পর্যাপ্ত নিরাপত্তা ব্যবস্থা না থাকে তাহলে সবাই এক কক্ষে না থেকে আলাদা আলাদা কক্ষে যান। বজ্রপাতে কেউ আহত হলে বৈদ্যুতিক শকে আহতদের মত করেই চিকিৎসা করতে হবে। বজ্রপাতে আহত ব্যক্তির চিকিৎসার জন্য চিকিৎসককে ডাকতে হবে, কিংবা আহত ব্যক্তিকে দ্রæত হাসপাতালে নিয়ে যেতে হবে। বজ্র আহত ব্যক্তির শ্বাস-প্রশ্বাস ও হৃদ স্পন্দন ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।