লালমনিরহাট বার্তা
ফুলবাড়ীতে কখনো রোদ,কখনো বৃষ্টি  খেতের ধান ঘরে তুলতে চরম বিরম্বনায় কৃষক
অনিল চন্দ্র রায়, কুড়িগ্রাম থেকে : May 13, 2021, 5:05:45 PM সময়ে

ফুলবাড়ীতে কখনো রোদ,কখনো বৃষ্টি খেতের ধান ঘরে তুলতে চরম বিরম্বনায় কৃষক

কুড়িগ্রামের ফুলবাড়ীতে গত দুই সপ্তাহ ধরে বোরো ধান কাঁটা, মাড়াই, সিদ্ধ শুকাতে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন কৃষক। মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে চলতি ভরা মৌসুমে কৃষকদের ধান-কাঁটা ,মাড়াই ও শুকানোর বাঁধায় হয়ে দাঁড়ায় আকাশে কালো মেঘ ও গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি। এক সপ্তাহ ধরে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে আকাশে রোদ-বৃষ্টির লুকোচুরি দেখা দিয়েছে। থেমে থেমে কখনো রোদ , কখনো গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি হওয়ায় প্রান্তিক কৃষক-কৃষানিরা চরম ভোগান্তিতেই পড়েছেন। ১৩ মে সকাল থেকে দুপুর আড়াইটা ও গত এক সপ্তাহ ধরে রোদ-বৃষ্টির লুকোচুরির মধ্যেও উপজেলা জুড়ে দেখা গেছে আকাশে একটু রোদ দেখলে মনের আনন্দে ধান কাঁটা, মাড়াই ও শুকাতে বাড়ীর উঠান ও সড়কে ব্যস্ত হয়ে পড়েন কৃষক-কৃষানি। কিন্তু গত এক সপ্তাহ ধরে মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে থেমে থেমে হালকা ও মাঝারি বৃষ্টি হওয়ায় ধান কাঁটা, মাড়াই ও শুকানোর বিরম্ভনায় পড়তে হচ্ছে কৃষকদের। উপজেলার কুরুষাফেরুষা গ্রামের কৃষক হোসেন আলী ,আব্দুল সাত্তার, শৈলান চন্দ্র রায় ও ধীরেন্দ্র নাথ রায় জানান, গত বছরের চেয়ে এ বছর বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। গত এক সপ্তাহ থেকে রোদের তেমন দেখা নেই। বেশির ভাগেই গুঁড়ি গুঁড়ি বৃষ্টি থাকায় আমরা ধান-কাঁটা, মাড়াই ও শুকাতে পারছি না। কিছুক্ষণ পরপর রোদ-বৃষ্টির লুকোচুরির কারণে ধান শুকাতে পারছিনা। এমন পরিস্থিতি বেশিদিন থাকলে ধান নষ্ট হয়ে যাবে বলে তারা আশংকা করছে। উপজেলার গজেরকুটি গ্রামের কৃষক আফজাল হোসেন ও মোক্তার আলীসহ অনেকেই জানান, অর্ধেক ধান কাঁটা হয়েছে। এখনও খেতে ধান আছে। গত কয়েকদিন থেকে আকাশের পরিস্থিতি ভাল নাই। ধান মাড়াই ও শুকানো আমরা চরম দুচিন্তায় আছি। কুড়িগ্রামের রাজারহাট আবহাওয়া ও কৃষি পর্যবেক্ষণাগাড়ের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সুবল চন্দ্র রায় জানান, এক সপ্তাহ থেকে জেলায় মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে কখনো রোদ আবার কখনো হালকা ও মাঝারী বৃষ্টির দেখা দিয়েছে। আগামী দুই তিনদিন মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে হালকা ও মাঝারি বৃষ্টির সম্ভাবনাও রয়েছে। এ প্রসঙ্গে উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মাহাবুবুর রশিদ জানান, গত বছরের তুলনায় এবছর বোরো ধানের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ বছর উপজেলায় ৯ হাজার ৯৫০ হেক্টর জমিতে কৃষকরা বোরো ধান চাষ করেছে। এখন পর্যন্ত ৮ হাজার ৫০০ হেক্টর জমির ধান কৃষকরা ঘরে তুলছেন। সেই সাথে ধান কাঁটা ও মাড়াইয়ে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন। কয়েকদিনের মৌসুমী বায়ুর প্রভাবে কৃষকরা ধান মাড়াই ও শুকানো নিয়ে ভোগান্তিতে পড়লেও কৃষকরা খেতের ধান কাঁটা ও মাড়াইয়ে ব্যস্ত সময় পাড় করছেন।