লালমনিরহাট বার্তা
মানুষের আবেগের চাবিকাঠি যেখানে
ডয়চে ভেলে | ২৯ মে, ২০২৪, ৬:০৮ AM
মানুষের আবেগের চাবিকাঠি যেখানে

আমাদের শরীর, মন-মেজাজ, আবেগের পেছনে হরমোনের ভূমিকা কম নয়৷ নির্দিষ্ট কিছু ‘সুইচ' নির্দিষ্ট হরমোনের নিঃসরণ ঘটিয়ে সুখ, আনন্দ, সুরক্ষা, আত্মতুষ্টি ইত্যাদি নানা অনুভূতি জাগিয়ে তুলতে পারে৷

সব কিছুই সহজ হতো, যদি না এই সুইচটা থাকতো৷ আনন্দের সুইচ৷ একবার তাতে চাপ দিলেই দুঃখ এবং উদ্বেগ উধাও হয়ে যায়৷ সারা শরীর জুড়ে আনন্দের অনুভূতি ছড়িয়ে পড়ে৷ সত্যি কিন্তু এমন সুইচ রয়েছে, অন্তত জীববিদ্যার দৃষ্টিভঙ্গি থেকে তো বটেই৷ সেই সুইচ চালু করার একাধিক উপায় রয়েছে৷

মিষ্টি ও নোনতা, সাফল্য ও যৌনক্রিয়া, অ্যালকোহল ও মাদকের পাশাপাশি অনলাইন ও জুয়া খেলাও মনে আনন্দ দিতে পারে৷ এই সব পদক্ষেপ মস্তিষ্কের পুরস্কার কেন্দ্র বলে পরিচিত অংশে ডোপামিন নিঃসরণ করে৷ সেই মেসোলিম্বিক সিস্টেমের মধ্যে নিউরোট্রান্সমিটার থাকে৷

কিন্তু প্রশ্ন হলো, সে ক্ষেত্রে কি আমরা সত্যি আনন্দ অনুভব করি? বহুকাল ধরে ডোপামিন ‘সুখের হরমোন' বলে পরিচিত ছিল৷ বাস্তবে কিন্তু সেই হরমোন আমাদের মধ্যে চাহিদা আরো বাড়িয়ে তোলে, অর্থাৎ মনে অভাবের অনুভূতি জেগে ওঠে৷ মুখে চকোলেট ঢোকানোর আগেই ডোপামিনের সুইচ টেপা হয়ে যায়৷ প্রথম চকোলেট খাওয়ার আগেই দ্বিতীয়টির দিকে আমাদের হাত চলে যায়৷

আরো একটি সমস্যা রয়েছে৷ ঘনঘন সেই সুইচ টিপলে তার প্রভাব অনেক দুর্বল হয়ে ওঠে৷ কোনো এক সময়ে গভীর সুখের অভিজ্ঞতা উধাও হয়ে যায় এবং শুধু কিছুটা স্বাভাবিক বোধ করার তাগিদেই আমরা সেই সুইচ টিপতে থাকি৷ তাই আসক্তিজনিত রোগের ক্ষেত্রে ডোপামিন যে বড় ভূমিকা পালন করে, তা নিয়ে বিস্ময়ের কোনো কারণ নেই৷

কিন্তু এ ছাড়া অন্য সুইচও রয়েছে৷ যেমন অনেক খেলাধুলা করলে এন্ডরফিন হরমোনের নিঃসরণ ঘটে৷ এর ফলে আমরা প্রাণবন্ত ও উচ্ছাসিত হয়ে উঠি৷ সেইসঙ্গে এন্ডোক্যানাবাইনোড শরীরের পেশির ব্যথাও দূর করে৷

অন্য মানুষের সঙ্গে যোগাযোগ ও বিশেষ করে স্পর্শ অক্সিটোসিন হরমোনের নিঃসরণ ঘটায়৷ সেটা আমাদের সামাজিক সম্পর্ক গড়ে তুলতে ও বজায় রাখতে সাহায্য করে৷ জীবনসঙ্গী বা সদ্যোজাত সন্তানের ক্ষেত্রে এমনটা বেশি দেখা যায়৷ এর ফলে আমরা সুরক্ষা ও আশ্রয়ের অনুভূতি পাই৷

নির্দিষ্ট কিছু খাদ্য, খেলাধুলা ও সূর্যের আলো সেরোটোনিনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়৷ সেই হরমোন আমাদের মধ্যে সন্তুষ্টি ও নিজের সঙ্গে একাত্মতার বোধ জাগিয়ে তোলে৷ তবে সেই সব সুইচ স্বয়ংক্রিয় নয়৷ খেলাধুলার জন্য আত্মশৃঙ্খলার প্রয়োজন৷ অন্য মানুষের সঙ্গে আলাপ করতে হলে আমাদেরই সক্রিয় হতে হয়৷ একমাত্র সঠিক প্রেরণাই লক্ষ্য পূরণের পথ৷ সেই প্রেরণার জন্য আমাদের এক পরিচিত সুইচের আশ্রয় নিতে হয়৷ আর সেটা হলো ডোপামিন৷ কারণ অন্য কিছুই আমাদের এত বেশি উদ্বুদ্ধ করতে পারে না৷

মোদ্দা কথা হলো, প্রলোভন সত্ত্বেও সুখের অনুভূতির জন্য একটি সুইচের সন্ধানে তেমন ফল পাওয়া যায় না৷ একাধিক সুইচ চালু করলে তবেই সুখ ও আনন্দের পথে অগ্রসর হওয়া যায়৷

এই বিভাগের আরও খবর