ধর্ষণ: দিল্লিতে এবার নির্যাতনের শিকার হলেন ৮৬ বছরের বৃদ্ধা
গীতা পাণ্ডে, বিবিসি, দিল্লি: ভারতে প্রতি বছর হাজারে হাজারে ধর্ষণ হয় বা হচ্ছে। কিন্তু কিছু ঘটনা মনে দাগ কেটে যায়, তার মধ্যে একটা ঘটনা দিল্লি পুলিশের নজরে এসেছে, যেখানে ৮৬ বছরের এক বৃদ্ধাকে ধর্ষণ করেছে ত্রিশের কোঠায় থাকা এক ব্যক্তি।
দিল্লির নারী কমিশনের প্রধান সোয়াতি মালিওয়াল বলেন, এক সোমবার দুধওয়ালার জন্য বাড়ির দরজায় অপেক্ষা করছিলেন বৃদ্ধাটি। সেসময়েই অভিযুক্ত ধর্ষণকারীর নজরে পড়েন তিনি।
লোকটি তাকে বলে, দুধওয়ালা আজ আসবে না। সে বৃদ্ধাকে এমন এক জায়গায় নিয়ে যাওয়ার প্রস্তাব দেয় যেখানে গিয়ে দুধ পেতে পারেন তিনি।
বৃদ্ধাটি তার কথায় ভরসা করে সঙ্গে যেতে সম্মত হয়। লোকটি তাকে নিকটবর্তী এক খামারবাড়িতে নিয়ে যায় এবং সেখানেই বৃদ্ধাকে ধর্ষণ ও নির্যাতন করে।
বৃদ্ধাটি চিৎকার করে কাঁদছিলেন। ছেড়ে দেয়ার জন্য অনুনয় করছিলেন। বলছিলেন আমি তোমার দাদির মত। কিন্তু এসবে কান না দিয়ে নির্দয় নির্যাতন অব্যহত রাখে ধর্ষণকারী। বলছিলেন সোয়াতি মালিওয়াল।
আশেপাশের গ্রামে যারা কান্নার শব্দ শোনেন তারা দৌঁড়ে এসে বৃদ্ধাকে উদ্ধার করেন এবং ধর্ষণকারীকে পুলিশে দেন।
গত মঙ্গলবার মিজ মালিওয়াল ওই বৃদ্ধাকে দেখতে যান। তার বর্ণনায় বৃদ্ধার সাথে দেখা হওয়ার ঘটনাটি ছিল হৃদয় ভেঙ্গে যাওয়ার মত।
বৃদ্ধাটির হাতে চামড়া কোঁচকানো। তার সাথে যা হয়েছে তা শুনলে আপনি আঘাত পাবেন। তার মুখে ও শরীরে এখনো আঁচড়ের দাগ পষ্ট। তিনি আমাকে বলেছেন তার যৌনাঙ্গ দিয়ে রক্তপাতও হয়েছিল। ভয়াবহ এক মানসিক যন্ত্রনার মধ্যে দিয়ে দিন কাটছে তার।
অভিযুক্তের মৃত্যুদণ্ড দাবি করেন মিজ মালিওয়াল। অভিযুক্তকে 'অমানুষ' বলে বর্ণনা করেন তিনি।
আমি দিল্লি হাই কোর্টের প্রধান বিচারপতি এবং শহরের লেফটেন্যান্ট-গভর্ণরেক লিখবো যাতে, মামলাটি দ্রুত নিষ্পত্তি হয় এবং ছয় মাসের মধ্য অপরাধীকে ফাঁসির দড়িতে ঝোলানো হয়।
২০১২ সাল থেকে ভারতজুড়ে ধর্ষণ ও যৌন নির্যাতন একটা বড় ইস্যুতে পরিণত হয়। ওই সময় দিল্লিতে এক ছাত্রীকে চলন্ত বাসে ধর্ষণের ঘটনা খুব আলোচিত হয় যেটি পরে পরিচিত হয় দিল্লির নির্ভয়া ধর্ষণ ও হত্যা মামলা নামে।
চলতি বছরের মার্চ মাসে এই মামলায় অভিযুক্ত চারজনকে ফাঁসি দেয়া হয়।
সপ্তাহের বিশেষ প্রতিবেদন- এর অন্যান্য খবর