আগামী প্রজন্মের জন্য নদীকে সংরক্ষণ করে যেতে হবে
ড. মুজিবর রহমান: জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান ড. মুজিবর রহমান হাওলাদার বলেছেন, আগামী প্রজন্মের জন্য নদীকে সংরক্ষণ করে যেতে হবে। নদীর মালিক রাষ্ট্র কিংবা সরকার নয়। নদীর মালিক বাংলাদেশের জনগণ। নদীর জমির শ্রেণী পরিবর্তন, নদীর জমি লীজ প্রদান বেআইনী। সেই সাথে জেলা প্রশাসনের যে কোন সরকারী কর্মকর্তার প্রকৃত লীজ বাতিলযোগ্য।
তিনি গত ৪ সেপ্টেম্বর বাংলাদেশ নদী বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য, জেলা ও মহানগর কমিটির  সভাপতি। সাধারন সম্পাদকের সাথে অন-লাইনের মাধ্যমে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
তিনি বলেন, সুপ্রিম কোর্টের রায় মোতাবেক নদী কেন্দ্রীক যে কোন প্রকল্প গ্রহণের পূর্বে জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের অনাপত্তি পত্র গ্রহণ করতে হবে। দেশের স্বার্থান্বেষী ও প্রভাবশালীরা নদী দখল করে রাখতে পারবে না। তাদের অবশ্যই উচ্ছেদ করা হবে। নদী দখল ও দুষণ প্রতিরোধে প্রত্যেক এলাকার জাতীয় সংসদ সদস্য (এমপি) জেলা, উপজেলা ও ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ও নির্বাচিত প্রতিনিধি, ইউপি সদস্যকে এগিয়ে আসতে হবে। জাতীয় নদী রক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান বলেন, হিন্দুকুঞ্জ হিমালয় থেকে অতিরিক্ত পানি নেমে আসার ফলে বাংলাদেশে দীর্ঘস্থায়ী বন্যা হচ্ছে। তাই নদী সংকোচন ও নদীর তলদেশ ভরাট করে কোন প্রকল্প গ্রহণ করা যাবে না। নদীকে তার জায়গায় ফিরিয়ে আনা হবে। তিনি বলেন, বাঙ্গালী জাতির স্লোগান ছিল তোমার আমার ঠিকানা পদ্মা, মেঘনা, যমুনা। অর্থাৎ বাংলাদেশের সকল নদ-নদী সংরক্ষণে বাংলার প্রতিটি মানুষকে এগিয়ে আসতে হবে। অন-লাইনে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন নদী বাঁচাও আন্দোলনের কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি অধ্যাপক আনোয়ার সাদত। অনুষ্ঠান সঞ্চালন করেন কেন্দ্রীয় কমিটির সাধারন সম্পাদক এ্যাড. আনোয়ার হোসেন।
অন-লাইন সংযুক্ত হয়ে নিজ নিজ জেলায় সমস্যা, দখল ও দুষণ নিয়ে করণীয় দিবসে বক্তব্য রাখেন সিলেট জেলা সভাপতি অধ্যাপক আমিনুর রহমান, খুলনা জেলা সভাপতি এ্যাড. দীপঙ্কর কুমার সাহা, সাতক্ষিরা জেলা সভাপতি দিদারুল ইসলাম, কক্সবাজার সভাপতি আব্দুুর রহমান, পঞ্চগড় জেলা সভাপতি ফজলে নূর বাচ্চু, গাইবান্ধা জেলা সভাপতি আবিদুর রহমান স্বপন, কিশোরগঞ্জ জেলা সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা খন্দকার মুজিবুর রহমান, ঝালকাঠি জেলা সভাপতি হিমায়েত উদ্দীন হিমু। রাজশাহী থেকে ড. ইফতেখারুল আলম, বরিশাল থেকে রফিকুল আলম, পরিবেশ বিষয়ক গবেষক ড. শাহজালাল খন্দকার, রাজবাড়ী থেকে আমিরুল ইসলাম, নাটোর থেকে আব্দুল হাকিম প্রমুখ।
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর