ভুল চিকিৎসায় চোঁখ হারাতে বসেছে দিনমজুর বৃদ্ধ
আজিনুর রহমান আজিম: ভুল চিকিৎসার কারণে লালমনিরহাট জেলার পাটগ্রাম উপজেলার সামসুল হক (৬২) নামে এক দিনমজুর বৃদ্ধের ডান চোখ নষ্ট হওয়ার পথে। তিনি উপজেলার বাউরা ইউনিয়নের জমগ্রাম এলাকার আব্দুল করিমের ছেলে।
একই ইউনিয়নস্থ বাজারের রিয়াজুল করিম ওরফে দাদুল (৬০) নামের চিকিৎসক তার পরামর্শপত্রে জেনারেল প্রাকটিশনার ও চক্ষু চিকিৎসক হিসেবে নিজেকে দাবি করে ওই বৃদ্ধের চিকিৎসাসেবা দেন। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওই চিকিৎসক চক্ষু বিশেষজ্ঞ বা এ  বিষয়ে কোনো প্রশিক্ষণ বা সনদ নেই। চক্ষু চিকিৎসকদের মতে সঠিক চিকিৎসা না হওয়া ও ভুল চিকিৎসা দেওয়ার কারণে সামসুল হক নামে ওই বৃদ্ধের চোঁখ নষ্ট হওয়ার উপক্রম।
এ বিষয়ে দিনমজুর সামসুল হক বলেন, প্রায় এক মাস আগে বিছানায় শুয়ে থাকা অবস্থায় আমার ডান চোঁখে কোনো কিছু পড়ে এতে চোঁখের সমস্যা দেখা দিলে বাউরা বাজারের চিকিৎসক ডাঃ রিয়াজুল করিম (দাদুল)’র চিকিৎসা গ্রহণ করি। দু’দফা ঔষধ পরিবর্তন করে দেন তিনি (ডাঃ দাদুল)। আমাকে বলা হয় আমার চোখের মাংস বেড়ে গেছে। তার লিখে দেওয়া ঔষুধ খেয়ে আমার চোঁখের সমস্যা খুব বেড়ে যায় ও এক সময় ওই চোঁখ দিয়ে কিছুই দেখতে পাই না।
বর্তমানে সামসুল হক লালমনিরহাটের আরডিআরএস’র চক্ষু চিকিৎসক শ্যামল চন্দ্র’র স্মরনাপন্ন হন। চোঁখ পরীক্ষার পর তাকে জানানো হয় ভুল চিকিৎসায় তার চোঁখ নষ্ট হয়ে যাওয়ার পথে। তাকে উন্নত চিকিৎসা গ্রহণের পরার্মশ দেওয়া হয়েছে। 
সরেজমিনে বাউরা বাজারে গিয়ে দেখা যায়, একটি টিনের চালায় চেম্বার দিয়ে বসেছেন চিকিৎসক রিয়াজুল করিম দাদুল। নিজের কোনো সনদপত্র না থাকলেও তার পরামর্শপত্রে নিজেকে জেনারেল প্রাকটিশনার ও চক্ষু চিকিৎসক হিসেবে উল্লেখ করেছেন। যা দেখে অনেকেই তাকে চক্ষু চিকিৎসক ভেবে তার কাছ থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন। ওই এলাকায় তিনি চোঁখের ডাক্তার বলে পরিচিত।
রিয়াজুল করিম দাদুল জানান, তার এক বড় ভাই বাংলাদেশ রেলওয়ের চক্ষু চিকিৎসক ছিলেন। তার সাথে চলাফেরা করে তিনি চক্ষু চিকিৎসার উপর ধারণা নিয়েছেন। সে ধারণা থেকেই তিনি চিকিৎসা দিচ্ছেন। সামসুল হকের চোঁখের চিকিৎসার ব্যাপারে বলেন, এটা আমার ভুল হয়েছে। তাঁর উন্নত চিকিৎসার জন্য আমি সবরকম ব্যবস্থাসহ আর্থিক সহায়তা দিয়েছি।
লালমনিরহাটের বে-সরকারি প্রতিষ্ঠান আরডিআরএস বাংলাদেশ’র চক্ষু চিকিৎসক ডাঃ শ্যামল চন্দ্র বলেন, সামসুল হক আমার কাছে চোঁখের সমস্যা নিয়ে এসেছিলেন। তার ভুল চিকিৎসার কারণে চোঁখ নষ্ট হয়ে যাওয়ার পথে। উন্নত চিকিৎসা গ্রহণের জন্য রংপুর যেতে বলেছি।,
এ বিষয়ে পাটগ্রাম উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডাঃ অরুপ পাল বলেন, বিষয়টি শুনেছি। তদন্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর