লালমনিরহাটে কথিত পুলিশের সোর্স মাদক ব্যবসায়ী লিটন মুন্সী আটক
স্টাফ রিপোর্টার: জেলা সদরের মোগলহাট সীমান্তের কুখ্যাত মাদক ব্যবসায়ী, নানা অপকর্মে হোতা পুলিশের সোর্সের পরিচয়ে নাজির হোসেন(৩৫) (লিটন মুন্সী) সদর থানার ওসির নামে এক নিরীহ নারীর কাছে অর্থ হাতিয়ে নেয়ায় পুলিশ সোমবার সন্ধ্যা তাকে আটক করে। এ ঘটনায় মোগলহাট সীমান্ত গ্রামে নিরীহ গ্রামবাসীরা আনন্দে মিষ্টি বিতরণ করেছে। আজ মঙ্গলবার মোগলহাটে বেড়িয়ে আসছে লিটন মুন্সীর নানা অপকর্মের চাঞ্চল্যকর তথ্য। পুলিশের ভুমিকায় ও পুলিশ সুপার আবিদা সুলতানার  প্রশংসায় ভাসছে গ্রাম।
জানা গেছে, জেলা সদরের মোগটহাট ইউনিয়নের বাকশিটারী গ্রামের জনৈক নারী তার স্বামীকে তালাক দেয়। এই ঘটনায় স্বামীর স্বজনরা তাকে নির্মম ভাবে প্রহার করে। এতে মেয়েটির রক্তাক্ত জখম হয়। তিনি লালমনিরহাট সদর হাসপাতালে চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে ৫ জন কে আসামী করে মামলা দায়ের করতে সদর থানায় যায়। সেখানে একই গ্রামের মৃত হাবিবুর রহমান হাডুর ছেলে নানা অপকর্মে হোতা, মাদক ব্যবসায় ও উগ্রমন্থি মতবাদে বিশ^াসী নাজির হোসেন লিটন মুন্সী ওই নারীর কাছ হতে মামলার এজাহার কৌশলে নিয়ে নেয়। থানায় মামলা রেকর্ড করতে ওসিকে অর্থ দিতে হবে বলে অর্থ হাতিয়ে নেয়। লিটন মুন্সী নারীর দায়ের করা মামলার আসামীদের সাথে যোগাযোগ করে তাদের কাছ হতে মোটা অস্কের টাকা ওসির নাম করে হাতিয়ে নেয়। পরে নারী দায়ের করা মূল এজাহার থানায় না দিয়ে ওই প্রতারক লিটন মুন্সী নিজে একটি মন গড়া এজাহার লিখে তাতে নারী স্বাক্ষর জাল করে থানায় রেকর্ড করায়। পুলিশ মামলাটি তদন্ত করলে ভুক্তভুগী নারী বিষয়টি জানতে পারে। তিনি গতকাল সোমবার দুপুরে পুলিশ সুপার আবেদা সুলতানাকে বিষয়টি খুলে বলে ও লিখিত অভিযোগ দায়ের করে। ফলে পুলিশ লিটন মুন্সীকে জালিয়াতির অপরাধে আটক করে ওই দিন সন্ধ্যায় জেল হাজতে পাটায়। এই ঘটনাটি সীমান্ত গ্রাম মোগলহাটে পৌচ্ছালে এই প্রতারক ও সন্তাসী লিটন মুন্সীর নানা ভাবে যাদের এতোদিন হয়রানি করেছে তাদের মধ্যে স্বস্তি ফিরে আসে। তারা মোগলহাটে আনন্দে একে অপরকে মিষ্টি খাওয়ায়। এখন মোগলহাটে লিটন মুন্সী অসৎ কিছু পুলিশের কর্মকর্তা ও সদস্যের সাথে সখ্যতা গড়ে তুলে নানা অপকর্ম করার ঘটনা সাধারণ মানুষের মুখে মুখে প্রচার হচ্ছে।
লালমনিরহাট সদর থানার ওসি মাহফুজুর রহমান জানান, কে লিটন মুন্সী তাঁকে আমরা চিনি না। তার বিরুদ্ধে স্বাক্ষর জাল ও প্রতারনার অভিযোগ দায়ের হয়েছে। তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ভুক্তভুগী কোন পরিবার তার বিরুদ্ধে হয়রানিসহ কোন অভিযোগ করলে সেটাও গ্রহন করে আইনি ব্যবসা নেয়া হবে। এসপি আবিদা সুলতানা জানান, নাজির হোসেন লিটন মুন্সীর নামে নানা গুরুতর অপরাধে জড়িত সম্পর্কে মৌখিক তথ্য আছে। কিন্তু কেউ অভিযোগ না করায় ও তথ্য প্রমাণ পুলিশের হাতে না থাকায় তাকে আইনের কাছে সোপর্দ করা যায়নি। এখন অভিযোগ পেয়েছি তাকে শাস্তি দিতে পুলিশ ভুমিকা রাখবে। লিটন মুন্সী যাতে সাধারণ মানুষকে হয়রানি করতে না পারে পুলিশের সর্তক দৃষ্টি থাকবে।
কে এই লিটন মুন্সী ॥
নাজির হোসেন লিটন মুন্সী নিজেকে পুলিশের সোর্স পরিচয় দিয়ে সীমান্ত গ্রামটিতে অপরাধের স্বর্গবাজ্য গড়ে তুলে ছিল। মাদক অস্ত্র নিরীহ মানুষের বাড়িতে রেখে কথিত অসৎ পুলিশ ও ডিবি পুলিশ দিয়ে মানুষকে গ্রেফতার করে মোটা অস্কের অর্থ আদায় করে আসছিল। অনেককে সে মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়েছে। অনেকে তার হয়রানি ও নির্যাতনের স্বীকার হয়ে গ্রাম ছাড়া হয়েছে। তার এখানে বাড়ি নয়। প্রায় ১৮ বছর পূর্বে মোগলহাটে মুগির মাংসের ব্যবসা করতে আসে। ধুরন্দর লিটন মুন্সী সীমান্ত গ্রামের অপরাধ জগতে জড়িয়ে পড়ে। অবৈধ অস্ত্র, মাদক, গরু পাচারসহ নানা অপকর্ম করে আসে। সব সময় তার মোটর সাইকেলে ১টি বিশেষ ধরণের লাঠি থাকত। সে উগ্রমৌলবাদী চক্রের সাথে জড়িত থাকার তথ্য গোয়েন্দা সংস্থার কাছে রয়েছে। তার অপকর্ম সম্পর্কে তথ্য সংগ্রহে মাঠে নেমেছে গোয়েন্দা সংস্থা গুলো। তাকে প্রত্যারণায় গ্রেফতার করায় অনেক পুলিশ কর্মকর্তার অপকর্মের তথ্য মাঠে প্রচার পাচ্ছে। সে সব পুলিশ কর্মকর্তাগণ তাকে বাঁচাতে ও নিজেদের অপকর্ম ঢাকতে রাজনৈতিক নেতাদের দিয়ে ম্যানেজ করার চেষ্টা চালাচ্ছে। এসপির সৎ ভুমিকায় আতস্কে আছে পুলিশের অসৎ কর্মকর্তা ও কর্মচারি গণ।
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর