হাতীবান্ধায় তিস্তার পানি বৃদ্ধিতে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত
স্টাফ রিপোর্টার: ভারত থেকে আসা উজানের পাহাড়ি ঢল ও ভারি বর্ষণের কারণে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এতে করে লালমনিরহাটের হাতীবান্ধা উপজেলার নিম্নাঞ্চলগুলোর কয়েক হাজার মানুষজন পানিবন্দি হয়ে পড়ছে।
শনিবার (২০ জুন) বিকেল ৩টায় দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজ ডালিয়া পয়েন্টে পানি প্রবাহ রেকর্ড করা হয় ৫২ দশমিক ৭০ সেন্টিমিটর। যা (স্বাভাবিক ৫২ দশমিক ৬০সেঃমি) বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে।
জানাগেছে, শুক্রবার (১৯ জুন) রাতে হঠাৎ বাড়তে থাকে তিস্তার পানি। যা ক্রমেই বৃদ্ধি পেয়ে শনিবার সকাল ৬টায় বিপদসীমার ২০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়। এরপর পর্যায়ক্রমে কমতে থাকে পানি। সকাল ৯টায় বিপদসীমার ১৮ সেন্টিমিটার, দুপুর ১২টায় ১৩ সেন্টিমিটার ও বিকেল ৩টায় ১০ ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়।
এ দিকে তিস্তা নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় হাতীবান্ধা উপজেলার সানিয়াজান, গড্ডিমারী, সিন্দুর্না, পাটিকাপাড়া, সিংগিমারী ও ডাউয়াবাড়ী ইউনিয়নের অনেক মানুষ পরিবার পানিবন্দি হয়ে পড়ে।
এ বিষয়ে হাতীবান্ধা উপজেলা ত্রান ও প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা (পিআইও) ফেরদৌস আহ্মেদ বলেন, পানিবন্দি পরিবারগুলোর খোঁজ খবর নেওয়া হচ্ছে। সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন চেয়ারম্যানের পানিবন্দি পরিবারগুলোর তালিকা করতে বলা হয়েছে। তালিকা পেলে বরাদ্দ নিয়ে ত্রাণ বিতরণ করা হবে।
এ বিষয়ে দেশের বৃহত্তম সেচ প্রকল্প তিস্তা ব্যারাজের ডালিয়ার নির্বাহী প্রকৌশলী রবিউল ইসলাম বলেন, পানি কমতে শুরু করেছে। বর্তমানে তিস্তা নদীর পানি বিপদসীমার ১০ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ব্যারাজের সবগুলো জলকপাট খুলে দেয়া হয়েছে।
জাতীয় বার্তা- এর অন্যান্য খবর