রংপুরের বদরগঞ্জে শিশু রিতুকে ধর্ষণের পর হত্যা ॥ মরদেহ উদ্ধার
রংপুর অফিস: নিখোঁজ হবার দুদিন পর রিতু মনি নামে আট বছরের শিশুর লাশ যমুনেশ্বরী নদী থেকে ভাসমান অবস্থায় উদ্ধার করেছে বদরগঞ্জ থানার পুলিশ। স্বজনদের অভিযোগ শিশুটিকে ধর্ষন করে শ্বাস রোধ করে হত্যা করে মরদেহ নদীতে ফেলে দিয়েছে দুবৃর্ত্তরা। ঘটনাটি ঘটেছে রংপুরের বদরগজ্ঞ উপজেলার বৈরামপুর মিয়া পাড়া গ্রামে। গত সোমবার দুপুরে শিশুটির লাশ উদ্ধার করা হয়। বদরগজ্ঞ থানার (ওসি তদন্ত) আরিফুল ইসলাম লাশ উদ্ধারের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
বদরগজ্ঞ থানার (ওসি তদন্ত) আরিফুল আলী জানায়, রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার বৈরামপুর মিয়াপাড়ার সোল্য়ামান হোসেনের আট বছরের শিশু কন্যা রিতু মনি। ১৩ জুন বাসা থেকে বান্ধবীদের সাথে খেলাধূরা করতে বাড়ির অদুরে মাঠে গিয়েছিলো। এরপর তার আর সন্ধান পায়নি স্বজনরা। এ ঘটনায় পরেরদিন ১৪ জুন রোববার নিখোজ রিতু মনির বাবা সোলায়মান হোসেন বদরগঞ্জ থানায় সাধারন ডায়রী করে। অবশেষে সোমবার (১৫ জুন) দুপুরে তার মরদেহ পাশ্ববর্তী মিঠাপুকুর উপজেলার বড়বালা ইউনিয়নের ছড়ান এলাকায় যমুনেশ্বরী নদীতে ভাসমান অবস্থায় এক শিশুর লাশ দেখতে পায় এলাকাবাসি। এরই মধ্যে রিতু মনির স্বজনরা ঘটনা স্থলে গিয়ে তার লাশ সানাক্ত করে। মিঠাপুকুর ও বদরগঞ্জ থানা পুলিশ যৌথভাবে ঘটনা স্থলে গিয়ে শিশু রিতু মনির মরদেহ উদ্ধার করে।
এ ব্যাপারে নিহত রিতু মনির বাবা সোলায়মান হোসেন বলেন, আমার মেয়ে খেলতে বাসা থেকে বের হয়ে যাওয়ার পর দুবৃর্ত্তরা তাকে অপহরন করে নিয়ে গিয়ে ধর্ষন করে শ্বাস রোধ করে হত্যার পর লাশ নদীতে ফেলে দিয়েছে। এ ঘটনায় তিনি কয়েকজনের উপর সন্দেহ হয় বলে পুলিশকে জানিয়েছে। মেয়ে হত্যার বিচার চেয়ে কান্নায় ভেঙ্গে পরেন তিনি।
এ ব্যাপারে বদরগঞ্জ থানার এস আই আখতার হোসেনের সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, নিখোঁজের দুদিন পর তার লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এ ঘটনায় আগে একটি থানায় সাধারন ডায়রী হয়েছে।
বদরগঞ্জ থানার (ওসি তদন্ত) আরিফুল আলী বলেন, এখনও কোন মামলা হয়নি এবং কাউকেই গ্রেফতার করা হয়নি। তবে নিহতের মামলার প্রস্তুতি চলছে। তিনি আরো বলেন, লাশের ময়না তদন্তের প্রতিবেদন পাবার পরেই প্রকৃত মৃত্যুর কারন জানা যাবে।
এক নজরে- এর অন্যান্য খবর