প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ
বার্তা ডেস্ক: গত ১৮মে’২০২০ খ্রিঃ তারিখ বার্তা ২৪ ডটকম অনলাইন পত্রিকা, বিটিসি-নিউজ, ব্রেকিং নিউজ ও আন্দোলন-৭১ ডটকম অনলাইন পত্রিকায় প্রকাশিত ‘সাংবাদিকের দোকান পুড়িয়ে দিলেন ইউএনও‘ শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমার দৃষ্টি আকৃষ্ট হয়েছে। প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্নরুপে মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত। প্রকৃত ঘটনা হচ্ছে কুমড়ীরহাট এস.সি স্কুল এন্ড কলেজ সংলগ্ন দক্ষিন পার্শ্বে পাকা রাস্তা সংলগ্ন বিদ্যালয়ের খেলার মাঠের দক্ষিন অংশে গাছের বাগানে অবসর প্রাপ্ত সেনা সদস্য মকবুল হোসেন পিতা-হাসমত আলী গ্রাম ভেটেশ্বর থানা আদিতমারী, জেলা লালমনিরহাট গত ০১মে ২০২০খ্রিঃ তারিখ আনুমানিক সকাল ৯.০০ ঘটিকার সময় অত্র প্রতিষ্ঠানের উল্লেখিত জায়গায় দখল নিশ্চিতে রড, ইট, বালু সিমেন্টের সিঁড়ি পাথর নিয়ে কাজ শুরু করে। এ ব্যাপারে বাধা প্রদান করা হলে আমাকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ এবং মারপিটের হুমকি দেয়। কাজ অব্যাহত থাকায় আমি আদিতমারী থানায় অভিযোগ দায়ের করি। অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্তকারী কর্মকর্তা ঘটনাস্থলে আসলে সে দখলের কথা অস্বীকার করে এবং মালামাল সরিয়ে নেয়ার কথা জানায়। অতঃপর তদন্তকারী কর্মকর্তা উভয়পক্ষকে থানায় ডেকে জায়গার বিষয়ে নিজ নিজ কাগজসহ দখলের পক্ষে ব্যাখ্যা করতে বললে উক্ত মকবুল হোসেন তার কোনো রূপ কাগজপত্র নেই মর্মে ৭ দিনের মধ্যে তার মালামাল সরিয়ে নেয়ার মুচলেকা প্রদান করেন। উক্ত মুচলেকায় অভিযোগকারী মোঃ গোলাপ মিয়া (সাংবাদিক) পিতা- ফজলুল করিম গ্রাম কমলাবাড়ি স্বাক্ষী হিসাবে স্বাক্ষর করেন। থানায় অবস্থানকালে উক্ত গোলাপ মিয়া আমার মোবাইল নাম্বর ০১৩০২১৭০৪৮৭ থেকে প্রধান শিক্ষকের নিকট ৭ দিনের সময় চেয়ে অনুরোধ করেন। কিন্তু উক্ত মকবুল হোসেন ও গোলাপ মিয়া স্কুলের জমি অবৈধভাবে দখল করার কু-মতলবে মালামাল না সরায়ে টালবাহানার এক পর্যায়ে রাতের আঁধারে গত ১৬মে’২০২০ তারিখে রাত আনুমানিক সোয়া ১০ঘটিকার সময় এলাকার চিহ্নিত কিছু দুষ্টচক্রসহ ৮০/৯০ জনের একটি সংঘবদ্ধ দল উক্ত জায়গাটির বাগানের গাছ কেটে দো-চালা বেড়াবিহীন একটি টিনের ঘর উঠিয়ে প্রায় ১০ শতক  জমি বাঁশের বেড়া দিয়ে ঘিরে ফেলে। এ ব্যাপারে রাতেই প্রধান শিক্ষক সাহেবকে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে অবহিত করলে তিনি উপজেলা নির্বাহী অফিসার, আদিতমারী মহোদয় ও থানা অফিসার ইনচার্জ মহোদয়গণকে অবহিত করলে রাতেই থানা থেকে পুলিশের সদস্যগণ ঘটনা স্থলে উপস্থিত হয়ে ঘর উঠানোর বিষয়-এ জানতে চান। এ বিষয়ে তারা কোনরূপ যুক্তি বা কাগজ দেখাতে ব্যর্থ হলে থানার তদন্তকারী কর্মকর্তাকে ১ঘন্টার মধ্যে ঘর সরিয়ে নিবে মর্মে অঙ্গীকার করলে থানা পুলিশ চলে যায়। কিন্তু তারা গভীর ষড়যন্ত্রের অংশ হিসাবে ঘর না সরিয়ে সন্ত্রাসী কায়দায় স্থায়ীভাবে অবৈধ দখল করার পাঁয়তারা করলে পরদিন ১৭মে’২০২০ উপজেলা নির্বাহী অফিসার থানার অফিসার ইনচার্জসহ বিদ্যালয় কমিটির সদস্য, শিক্ষক/কর্মচারী, এলাকার সর্বস্তরের মানুষের উপস্থিতি ও সহযোগিতায় ঐতিহ্যবাহী প্রতিষ্ঠানের জমি অবৈধ দখল মুক্ত করতে অভিযান চালানো হয়। বিক্ষুব্ধ জনতা অবৈধ দখলদারের বিরুদ্ধে ইউএনও ও পুলিশ প্রশাসনের কাজে সন্তুষ্ট হয়ে করোতালির মাধ্যমে স্বতঃফুর্ত সমর্থন জানান। এবং তার বেড়া বিহীন টিনের দো’চালা  ঘরে এবং বাঁশের বেড়ায় আগুন জ্বালিয়ে অবৈধ দখলদারের বিরুদ্ধে তীব্র প্রতিবাদ জানায়। এসময় এলাকাল সর্বস্তরের শত শত মানুষ সেখানে উপস্থিত ছিলেন।
প্রকাশিত সংবাদটিতে নোটিশ ছাড়া লিজকৃত যে দোকান ঘরটি উচ্ছেদের  কথা বলা হয়েছে সেটি বিদ্যালয়ের গাছ বেষ্টিত ফাঁকা মাঠ সেখানে কোন দোকান ঘর বা স্থাপনা ছিল না। ঐ জায়গাটি প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষ কর্তৃক কোনরূপ লিজ বা ঘর তোলার জন্য মৌখিক অনুমতিও প্রদান করা হয়নি। উক্ত জমিটি তার লিজকৃত হলে রাতের অন্ধকারে দুষ্টচক্র নিয়ে ঘর নির্মাণ করার হয়। উল্লেখ্য যে, তার অভিযোগে যে লিজকৃত দোকান ঘরের কথা বলা হয়েছে সেটিতেও সে কোন প্রকার ভাড়া অদ্যাবধি প্রদান করেন নাই। প্রতিষ্ঠানের রশিদ বইয়ে তার নামে আজ পর্যন্ত কোন টাকা প্রদানের উল্লেখ নেই। তিনি ঐ দোকান ঘরটি মকবুল হোসেনকে ভাড়া দিয়ে প্রতি মাসে টাকা উত্তোলন করে আসছেন। আজ পর্যন্ত উক্ত মকবুল হোসেন হার্ডওয়্যারের দোকান করে আসছেন কাজেই বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ অন্যত্র লিজ দেয়ার পাঁয়তারা করছেন কথাটি আদৌও সত্য নয়।
আরও উল্লেখ্য যে, প্রতিষ্ঠানের জমিতে বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান স্থাপনের কোন সুযোগ বা বিধি-বিধান নেই। সেই জায়গাটিও  সে জোড় পূর্বক দখল করে রেখেছেন। সু-চতুর গোলাপ মিয়া যে দোকান ঘরটি পুড়িয়ে দেয়ার কথা বলেছেন সেটিতে মকবুল হোসেন ভাড়া নিয়ে দোকান করে আসছেন। এবং তা আজও অক্ষত অবস্থায় রয়েছে কাজেই তার ৫ লক্ষ টাকা ক্ষতি পুরনের দাবি হাস্যকর।
আমি প্রতিষ্ঠানের পক্ষ থেকে সভাপতি হিসাবে প্রকাশিত সংবাদটি সম্পূর্নরুপে মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দেশ্য প্রনোদিত হওয়ায় এর তীব্র  প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাই এবং উক্ত অবৈধ দখলদারদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহন করে ভবিষ্যতে যেন প্রতিষ্ঠানের জমি কেউ অবৈধ দখল করতে না পারে সে ব্যাপারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনে যথাযথ কর্তৃপক্ষের দৃষ্টি আকর্ষন করছি।
মোঃ রফিজ উদ্দিন
সভাপতি
কুমড়ীরহাট এসসি স্কুল এন্ড কলেজ
আদিতমারী, লালমনিরহাট।


   


শিক্ষা বার্তা- এর অন্যান্য খবর