এশিয়ায় মাহাদেশে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি অর্জিত হবে বাংলাদেশে
জাহাঙ্গীর আলম শাহীন: করোনাভাইরাসের কারণে বিশ্ব অর্থনীতিতে  নেতিবাচক প্রভাব  পড়েছে। বিশ্ব অর্থনীতি যখন ধংসের দ্বাপ্রান্তে। এই অর্থনৈতিক ক্ষতি থেকে রক্ষা পায়নি বাংলাদেশ। ফলে চলতি অর্থবছরে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি কিছুটা কমে যাবে। এ ধরণের পূর্বাভাষ দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। যার পরিমান ৭ দশমিক ৮ শতাংশ হতে পারে বলে অনুমান করছে তারা। তবে সু সংবাদ হলো প্রবৃদ্ধি কমলেও এশিয়া মহাদেশের দেশগুলোর মধ্যে সর্বোচ্চ প্রবৃদ্ধি হবে বাংলাদেশে। এটি নি:সন্দেহে বাংলাদেশের অর্থনীতির ও বাংলাদেশের জনগণের ভাগ্য উন্নয়নে একটি বড় ধরনে সুখবর। বিশ্ব অর্থনীতির মন্দার সময় যাহা বাংলাদেশের মজবুত অর্থনৈতিক সমৃদ্ধির পথে এক দাপ এগিয়ে নিয়ে যাবে।   
আজ শুক্রবার, ৩ এপ্রিল প্রকাশিত এডিবির এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক ২০২০ এ পূর্বাভাস দেওযয়া হয়েছে। যাহা এশিয়ান ডেভেলপমেন্টের ওয়েবসাইডে প্রদর্শিত হচ্ছে। তবে বর্তমান সরকার চলতি অর্থবছরে ৮ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধির লক্ষ্যমাত্রা ঠিক করেছিল। গত অর্থবছরে ৮ দশমিক ১৩ শতাংশ প্রবৃদ্ধি  হয়েছিল। তবে এডিবি বলছে, চলতি বছরে ৭ দশমিক ৮ শতাংশ হবে প্রবৃদ্ধি। কিন্তু আগামী অর্থবছরে প্রবৃদ্ধি আবার ৮ শতাংশ হবে বলে তারা ধারণা করেছে।
এদিকে করোনার সংক্রামণরোধে বিপযুস্ত অর্থনৈতিক সকল সূচক। তাই এশিয়ার দেশ গুলোর গড় প্রবৃদ্ধি ব্যাপকভাবে কমে যেতে পারে বলে এডিপি ধারণা করেছে। এডিবি বলছে, ২০২০ সালে এশিয়ার গড় প্রবৃদ্ধি ২ দশমিক ২ শতাংশ হবে বলে তাঁরা মনে করছে। গতবছর গড়ে ৫ দশমিক ২ শতাংশ প্রবৃদ্ধি হয়েছিল এশিয়ায় দেশ গুলোর।
এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে চীন ২ দশমিক ৩ শতাংশ, ভারতে ৪ শতাংশ, পাকিস্তান ২ দশমিক ৬ শতাংশ. শ্রীলংকা ২ দশমিক ২ শতাংশ, নেপাল ৫ দশমিক ৩ শতাংশ, ভিয়েতনামে ৪ দশমিক ৮ শতাংশ  প্রবৃদ্ধি হতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে এডিবি। পূর্ব এশিয়ার দেশগুলো বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে বলে শঙ্কা প্রকাশ করেছে এডিবি।



সপ্তাহের বিশেষ প্রতিবেদন- এর অন্যান্য খবর