করোনা ভাইরাস রোগ এবং আমাদের করণীয় : করোনা ভাইরাস রোগ কি এবং কারা বেশি আক্রান্ত
ড. তালাত নাসিম: করোনা ভাইরাস রোগ হচ্ছে করোনা নামক নুতন ভাইরাস এর আক্রমণে সংক্রমিত এক রোগ। এই ভাইরাস এ আক্রান্ত রোগীদের জ্বর (৩৭.৮ ডিগ্রী সেলসিয়াস), ক্রমাগত কাশি, ক্রমাগত হাঁচি, নাক দিয়ে পানি পড়া, গলাব্যথা, শ্বাসকষ্ট হতে পারে। এছাড়া রোগীদের নিউমোনিয়া এবং respiratory distess syndrome সব দেখা দিতে পারে।
বেশির ভাগ মানুষের শরীরে এ ভাইরাস অল্প-স্বল্প অসুস্থতা  তৈরি করতে পারে। তবে যারা অন্যান্য রোগ যেমন ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, উচ্চরক্তচাপ, কিডনি রোগসহ জটিল রোগে ভুগছেন তাদের ক্ষেত্রে এ ভাইরাস আক্রমণ প্রাণঘাতী হতে পারে। যাদের বয়স ৬০ এর বেশী তাদের ক্ষেত্রে এ ভাইরাস এর সংক্রমণ বেশী দেখা গেছে। মৃত্যুহার সবচেয়ে বেশি যাদের বয়স ৭০ এর বেশী।
কিভাবে এই ভাইরাস ছড়ায়?
আক্রান্ত ব্যক্তির কাশি, হাঁচি, কথা বলা, স্পর্শ, আক্রান্ত ব্যক্তির ব্যবহার্য জিনিসপত্রের মাধ্যমে এ ভাইরাস একদেহ থেকে অন্য দেহে ছড়িয়ে পরে।
প্রতিরোধ
এই ভাইরাস যেহেতু মানুষের মাধ্যমে ছড়ায়, সেহেতু আমাদের কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে নিজেকে রক্ষা করতে এবং কিছু পদক্ষেপ নিতে হবে অন্যদের রক্ষা করতে।
নিজেকে রক্ষা
* ২০ সেকেন্ড ধরে সাবান দিয়ে হাত ধোয়া * হাত দিয়ে মুখমন্ডল স্পর্শ না করা *যে সব স্থানে ৬ বা তার অধিক মানুষের সমাগম হয়, সেই জায়গাগুলো না যাওয়া * আক্রান্ত ব্যক্তিদের থেকে দূরে থাকা * পাবলিক স্থানে অন্য ব্যক্তি থেকে অন্তত ৬ ফুট দূরত্ব বজায় রাখা। হ্যান্ডশেক, কোলাকুলি না করা।
অন্যদের রক্ষা-
* যাদের বয়স ৭০ এর বেশী তাদের থেকে দূরে থাকা * যাদের বাড়িতে বয়স্ক লোকজন (বাবা-মা-দাদা-দাদী) আছেন, তাদের হেফাজত করা। যদি সম্ভব হয়, তাদের ঘরে খাবার পৌঁছে  দিয়ে এবং  দৈনন্দিন কাজকর্ম থেকে তাদের বিরত রাখা। তারা যাতে কোনোভাবেই সংক্রমিত হতে না পারে সেদিকে বিশেষ নজর দেয়া। * যদি আপনার কিংবা পরিবারের মধ্যে কোন কোনো উপসর্গ দেখা দেয়, তাহলে প্রথম সাত দিন isolation বাড়িতে অবস্থান করা এবং উপসর্গ না কমলে ডাক্তারের সাথে যোগাযোগ করা এবং ১৪ দিন বাড়ি থেকে  বের না হওয়া।
চিকিৎসা এ ভাইরাস এর প্রতিষেধক এখনো আবিস্কৃত হয়নি। তবে favipiravir নামক এক ওষুধ ভাইরাস এ আক্রান্ত রোগীদের প্রয়োগ করে ভালো ফলাফল পাওয়া গেছে। এছাড়া hydroxychloroquine এবং azithromycin প্রয়োগে ভালো ফলাফল দেখা গেছে।
লেখক : ড. তালাত নাসিম, বিজ্ঞানী এবং বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক।
স্বাস্থ্য বার্তা- এর অন্যান্য খবর