করোনাভাইরাসের কারণে বুড়িমারী স্থলবন্দর বন্ধ
আজিনুর রহমান আজিম: করোনাভাইরাসের কারণে লালমনিরহাটের বুড়িমারী স্থলবন্দর বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত হয়েছে। সরকারী এ সিদ্ধান্ত ইতোমধ্যে কার্যকর হতে দেখা গেছে। করোনাভাইরাস প্রতিরোধে জনসচেতনতা সৃষ্টির জন্য ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি কর্তৃক ঘোষিত জনতা কার্ফুয়ে সমর্থন জানিয়ে ভারতের চ্যাংড়াবান্দা স্থলবন্দর রোববার(২২ মার্চ) একদিন বন্ধ রাখায় বুড়িমারী স্থলবন্দর দিয়েও আমদানি- রপ্তানি বন্ধ থাকে। অপরদিকে করোনাভাইরাসের সংক্রমন ঠেকাতে বুড়িমারী স্থলবন্দরের ওপারে ভারতীয় চ্যাংড়াবান্দা স্থলবন্দর কিøয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং অ্যাজেন্ট (সিএন্ডএফ) ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ২৩ মার্চ সোমবার থেকে ৩১ মার্চ মঙ্গলবার পর্যন্ত চ্যাংড়াবান্দা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি- রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্ত নেয় এবং সিদ্ধান্তের দুটি চিঠি বন্দর সংশ্লিষ্ট দপ্তরে প্রেরণ করে। ফলে বুড়িমারী স্থলবন্দরও বন্ধ হয়ে পড়বে।   
বুড়িমারী স্থলবন্দর আমদানি- রফতানিকারক অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক ও বুড়িমারী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবু সাঈদ নেওয়াজ নিশাত বলেন, সরকারি সিদ্ধান্তে বুড়িমারী স্থলবন্দর বন্ধ থাকবে। এছাড়াও ভারতের চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দর কিøয়ারিং অ্যান্ড ফরওয়ার্ডিং অ্যাজেন্ট (সিএন্ডএফ) ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ২৩ মার্চ সোমবার থেকে ৩১ মার্চ মঙ্গলবার পর্যন্ত চ্যাংড়াবান্দা স্থলবন্দর দিয়ে আমদানি- রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কথা চিঠি দিয়ে জানিয়েছে।
বুড়িমারী ইমিগ্রেশন কর্মকর্তা আনোয়ার হোসেন জানান, ‘যাত্রী পারাপার কমে গেছে। ভারতে থাকা বাংলাদেশি পাসপোর্টধারী ২/১ জন করে যাত্রী আসছে। পারাপার বন্ধ থাকবে কী না এ ধরণের কোনো চিঠি ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ থেকে আসেনি বা জানানো হয়নি।
বুড়িমারী স্থলবন্দর কাস্টমস্ সহকারি কমিশনার (এসি) সোমেন কান্তি চাকমা বলেন, ‘ভারতীয় চ্যাংড়াবান্ধা স্থলবন্দরের সিএন্ডএফ অ্যাজেন্ট ওয়েলফেয়ার অ্যাসোসিয়েশন ২৩ মার্চ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত চ্যাংড়াবান্দা স্থলবন্দর বন্ধ রাখার সিদ্ধান্তের কথা চিঠি দিয়ে জানিয়েছে। বুড়িমারী স্থলবন্দর বন্ধ রাখার বিষয়টি আমরা খবরে জেনেছি। ঊর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ থেকে কোনো মেইল এখন পর্যন্ত (বিকেল ৫ টা) পাইনি।
 


 



এক নজরে- এর অন্যান্য খবর