রংপুরে ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদে ফুঁসে উঠেছে সাধারণ শিক্ষার্থীরা
স্টাফ রিপোর্টার, রংপুর: দেশে আইন থাকার পরও কেন সন্ত্রাসীরা মানুষকে পিটিয়ে হত্যা করার সাহস পায়। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আমাদের স্বাভাবিক মৃত্যুর গ্যারান্টি দিন। আমরা পড়তে এসেছি, মরতে আসিনি। পড়তে এসে, মরব কেন ? বুুয়েট শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদ হত্যার প্রতিবাদ জানিয়ে এভাবেই কান্নাজড়িত কণ্ঠে কথাগুলো বলেন রিনা মুরমু। মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বেলা ১টায় বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) সাধারণ শিক্ষার্থীদের আয়োজিত মানববন্ধনে অংশ নেয় রিনা মুরমু। এরআগে বেলা সাড়ে বারো টায় বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে সাধারণ শিক্ষার্থীরা বিক্ষোভ মিছিল করে। পরে ক্যাম্পাস থেকে বের হয়ে মিছিলটি নগরীর মডার্ণ মোড়ে গিয়ে সড়কে অবস্থান নিয়ে আবরার হত্যার প্রতিবাদ জানান।
সেখান থেকে বিক্ষোভ মিছিল নিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের মূল ফটকের সামনে  মানববন্ধন সমাবেশ করেন বেরোবির সাধারণ শিক্ষার্থীরা। এতে বক্তব্য রাখেন, বেরোবি শিক্ষার্থী রিনা মুরমু, হাসান মাহমুদ, আলমগীর কবির, মিজানুর রহমান, রাব্বী ইসলাম, নজরুল ইসলাম প্রমুখ।
আবরারের মৃত্যুতে ফুঁসে উঠা শিক্ষার্থীরা বলেন, অনেক স্বপ্ন নিয়ে আমাদের পরিবার শিক্ষাঙ্গনে পাঠিয়েছে। পড়ালেখা শেষ করে দেশের জন্য কাজ করব। কিন্তু তার আগেই কুলষিত ছাত্ররাজনীতি আমাদেও মা-বাবাকে লাশ উপহার দিচ্ছে। এভাবে আর কত লাশের রক্তে গন্ধে শিক্ষাঙ্গনের পবিত্রতাকে কুলষিত করা হবে। এর শেষ কোথায়। এই কর্মসূচীর এক ঘন্টা পর কারমাইকেল কলেজ গেট সংলগ্ন লালবাগ চত্বরে সাধারণ ছাত্র পরিষদের ব্যানারে প্রতিবাদ সমাবেশ করে কারমাইকেল কলেজের শিক্ষার্থীরা। এতে বক্তব্য রাখেন- হানিফ খান সজীব, রুহুল আমিন, রাসেল মাহমুদ, তাজুল ইসলাম প্রমুখ। এসময় আবরার ফাহাদকে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যার সাথে জড়িত অপরাধী ও ইন্ধনদাতাদের দ্রুত গ্রেফতারসহ দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তির দাবী জানান সাধারণ শিক্ষার্থীরা। একই সাথে দেশের প্রতিটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষা সুষ্ঠু পরিবেশ ও শিক্ষার্থীদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করার দাবি জানানো হয়।



 


এক নজরে- এর অন্যান্য খবর