লালমনিরহাটে ধর্মীয় সম্প্রীতির বিরল দৃষ্টান্ত ॥ একই চত্বরে মসজিদ মন্দির
জাহাঙ্গীর আলম শাহীন: স্টাফ রিপোর্টার ॥ শত বছর ধরে একই আঙ্গিনায় মসজিদ-মন্দির লালমনিরহাটে ধর্মীয় সম্প্রীতির বিরল দৃষ্টান্ত। প্রত্যহ সন্ধ্যায় নামাজের পর চলে পুজা অর্চণা। মহাসমারহে চলছে  দূর্গাপুজা ও পাশেই মসজিদেও নামাজ। ধূপকাঠি ও আতরের সুঘ্রাণ মিশে একাকার।
জেলা শহরে ধর্মীয় সম্প্রীতির এক উজ্জ্বল নিদর্শন একই আঙ্গিনায় মন্দির ও মসজিদ। একপাশে উলুধ্বনি, অন্য পাশে চলছে আযান। এক পাশে ধূপকাঠি, অন্য পাশে আতরের সুঘ্রাণ। এভাবে ধর্মীয় সম্প্রীতির দৃষ্টান্ত স্থাপন করে চলেছে যুগ যুগ ধরে । পাশাপশি মসজিদ ও মন্দির পৃথক দু’টি ধর্মীয় উপাসনালয়। দেশের অন্য কোথাও আছে বলে জানা নেই। শত বছর ধরে যার যার মত ধর্ম পালন করে চলেছে। প্রতিদিন সন্ধ্যায় এই মন্দিরে শঙ্খ ধ্বনিবাজে, ঢাক ডোল পিটিয়ে হয় সান্ধ্যাকালীণ পুজা। একই সাথে মসজিদে প্রত্যহ সন্ধ্যায় মাগরিবের আযান হয়। মুসুল্লিরা জামাত করে নামাজ আদায় করে। কেউ কোনদিন ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান পালনে কারও প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করেনি। হয়নি কোন দাঙ্গা ফেসাদ। বরং দেশের কোথাও ধর্মীয় সম্প্রীতি নষ্টের ঘটনা ঘটলে এখানে হিন্দু মুসলিমরা এক সাথে ধর্মীয় প্রতিষ্ঠান দুইটির নিরাপত্তা নিশ্চিত করেন। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। মহাসমারহে আনন্দমুখুর পরিবেশে অনুষ্ঠিত হয়ে গেল শারদীয় দুর্গোৎসব।
এক নজরে- এর অন্যান্য খবর